চট্টগ্রামের কেরানিহাটে মলয়া আবর্জনার দুর্গন্ধে দূর্ভোগে সর্বসাধারণ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:১১ অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২১ | আপডেট: ৯:৩১:অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০২১

রমজান আলী, সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: মানুষের দুর্ভোগ যেন দেখার কেউ নেই, তবে ঠিক সময় চলে যাচ্ছে সরকারি কোষাগারে কোটি কোটি টাকা রাজস্ব। দক্ষিন চট্টগ্রামের বাণিজ্যিক প্রাণ কেন্দ্র সাতকানিয়া উপজেলার কেরানিহাট স্টেশনের উভয় পাশে নামমাত্র ড্রেনেজ থাকলেও ময়লা আবর্জনা ফেলার জন্য নিদিষ্ট ড্রাম্পিং স্টেশন না থাকায় যত্রতত্র ময়লা ফেলা হচ্ছে। আবর্জনা পঁচে দুর্গন্ধে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এতে বিভিন্ন রোগব্যাধি ছড়াচ্ছে। রাস্তার দুই পাশ দিয়ে নামমাত্র ড্রেন রয়েছে। ড্রেনটি দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়ে থাকলেও তা সংস্কারে কোন উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের। প্রতিনিয়ত বৃষ্টি ছাড়াই ড্রেনের ময়লা পানিতে রাস্তা তলিয়ে যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, সাতকানিয়া উপজেলার কেরানিহাট একটি অন্যতম বাণিজ্যিক প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত। গুরুত্বপূর্ণ এই বাজারে সামান্য বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। পানি নিষ্কাশনের নালা ময়লা-আবর্জনায় ভরাট হয়ে গেছে। এ কারণে জনসাধারণ চলাচলে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

এই দিকে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, বাজারে এসব ড্রেন নির্মাণে সরকারের লাখ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। তবে এগুলো সাধারণ মানুষের কোনো উপকারে আসছে না। বিশেষ করে বর্তমানে পানি নিষ্কাশন ব্যাহত হওয়ায় বাজারের বিভিন্ন স্থানে ময়লা-আবর্জনা মিশ্রিত পানি জমে থাকায় ব্যবসায়ীদের পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে।

নোমান ও বেলাল উদ্দিন বাজারে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন। তাঁদের কাপড় কাদা-পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। তাঁরা ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, এমন নোংরা পরিবেশে দেশের আর কোনো বাজারে আছে কি না সন্দেহ।

এই বিষয়ে কেরানিহাট প্রগতিশীল ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি ফেরদৌসের কাছে জানতে চাইলে তিনি দি বাংলাদেশ টুডে কে বলেন, হ্যাঁ কেরানিহাট বাজারে বিভিন্ন স্থানে যে ময়লা আবর্জনা জমা হয়েছে, ঐ ময়লা আবর্জনা গুলো দ্রুত সরিয়ে ফেলার জন্য আমাদের সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেদ কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং এক-দুই দিনের ভিতরে পরিষ্কার করে ফেলার জন্য বলা হয়েছে তাকে।

অত্র সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, সভাপতির আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে আমি যতদ্রুত সম্ভব ময়লা আবর্জনা গুলো মানুষ দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলব।