চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থানা এলাকা ‘রেড জোন’ ঘোষণা ; সচেতনতায় সিএমপি’র মাইকিং

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১ | আপডেট: ৬:২৩:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১

ইকবাল হোসেন, নগর প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম : বন্দর নগরী চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থানা এলাকার বেশ কিছু পাড়া মহল্লায় রেড জোন ঘোষণা করেছে সিএমপি, এর মধ্যে প্রাণ হরিদাস রোড়ের আসেপাশের এলাকা, মৌসুমি আবাসিক এলাকা, সরাইপাড়া এলাকায় করোনা রোগীর মৃত্যু এবং সংক্রমণ দ্রুত বিস্তার লাভ করায় এ এলাকা গুলো কে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে “রেড জোন” বা অধিক ঝুঁকিপুর্ণ এলাকা ঘোষণা করা হয়েছে।

এ এলাকায় বসবাসরত সাধারণ মানুষকে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে ও স্থানিয় চসিক ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং সামাজিক ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে সোমবার ১৯ এপ্রিল সকাল থেকে সচেতনতা মূলক মাইকিং করা হয়, এ আয়োজন সিএমপি’র পক্ষ থেকে করা হয়েছে বলে “দি বাংলাদেশ টুডে” কে জানান চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এর দক্ষিণ জোনের এডিসি পলাশ কান্তি।

তিনি আরও বলেন এখন লকডাউন চলছে, করোনা কালিন কি করতে হবে এবং কি করা হতে বিরত থাকতে হবে এটাই মুলত প্রচার প্রচারণার মুল লক্ষ্য। বাংলাদেশ পুলিশের একলক্ষ সদস্য করোনা সংক্রমণ সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। আমাদেরও পরিবার আছে বলে এডিসি আবেগ লুপ্ত কন্ঠে বলেন আপনারা ঘরে থাকুন, আপনারা ঘরে থাকলে আমরাও সুস্থ্য থাকব।

পাহাড়তলী থানার অফিসার্স ইনচার্জ ওসি, হাসান ইমাম এক প্রশ্নের জবাবে “দি বাংলাদেশ টুডে”কে বলেন গলির ভিতর অযথা আড্ডা, ঘুরাঘুরি, ইত্যাদি রোধে নিয়মিত পুলিশি কার্যক্রম রয়েছে ও অব্যাহত থাকবে।

১২নং সরাইপাড়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর বলেন বেশি করে নামাজ কালাম পড়ে এ রোগ থেকে মুক্তি চাইতে হবে আল্লাহর কাছ থেকে, আর স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে, অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। নিয়মিত হাত ধৌত করতে হবে।

এ সচেতনতা মূলক মাইকিং পোগ্রামে আরো উপস্থিত ছিলেন পাহাড়তলী জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার আরিফ, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ কয়েক ডজন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এডিসি পলাশ কান্তি আরও ঘোষণা দেন যে, করোনা সংক্রমণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।