চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে সাড়ে ১৪ ফুটের বিরাট এক অজগর

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৫৬ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯ | আপডেট: ১০:৫৬:অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯
ছবিঃ সংগৃহিত

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে ১৪ ফুট ৬ ইঞ্চির বিরাট এক অজগর উদ্ধার করা হয়েছে। অতিরিক্ত গরম এবং খাবারের সন্ধানে ওই অজগরটি জঙ্গল ছেড়ে ক্যাম্পাসের সমতলে নেমে আসে বলে জানা গেছে।

পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফরিদ হাসানের নিবিড় তত্ত্বাবধানে শিক্ষার্থীরা অজগরটিকে জঙ্গলে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান।

তিনি জানান: দুইদিন পরিচর্যা শেষে মঙ্গলবার দুপুরে অজগরটিকে অবমুক্ত করা হয়।

ড. মাহবুবুর রহমান বলেন: গত ১১ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় গেটের কাছ থেকে স্থানীয় লোকজন অজগরটিকে উদ্ধার করে। পরে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফরিদ হাসান খবর পেয়ে অজগরটিকে দুর্বল ও আঘাতপ্রাপ্ত অবস্থায় উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ন্যাকস হাউজে রেখে দুই দিন ধরে পরিচর্যা করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে অজগরটি সুস্থ হওয়ার পর মঙ্গলবার দুপুরের দিকে কাছের একটি পাহাড়ে অবমুক্ত করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ওই ঘটনায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে কোনো ভয়ভীতি কাজ করছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন: অজগররা খুব শান্ত প্রকৃতির, খুব সহজে আক্রমণ করে না। হয়তো খুব ক্ষুর্ধাত থাকায় অজগরটি লোকালয়ে খাবারের সন্ধানে নেমে এসেছে। তবে এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের ভয় পাওয়ার কোনো প্রশ্ন ওঠে না।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ও ওয়াইল্ড লাইফ অ্যাক্টিভিস্ট রাজীব নন্দী বলেন: সবুজ পাহাড়ি ও সমতল এলাকা এবং ঝর্ণাবেষ্টিত এই বাইশ শত একরের ক্যাম্পাসটি ইন্দোবার্মা হটস্পটের ভৌগলিক অবস্থানের কারণে এখানে অজগর, ব্যাঙ, হরিণের অবাধ আবাস।

এই ক্যাম্পাস থেকেই রেকর্ড হয়েছে পৃথিবীর সর্বশেষ প্রজাতির ব্যাঙ এবং বিলুপ্তপ্রায় একটি অর্কিড। তাই এই ক্যাম্পাসকে প্রাকৃতিক অভয়ারণ্য ঘোষণা দেয়ার জন্য জোর দাবি জানাই। যদিও এসব খবর মূলধারার গণমাধ্যমে উপেক্ষিত থাকে।