চলতি সপ্তাহে নতুন কার্যক্রম শুরু হচ্ছে প্রাথমিকে

প্রকাশিত: ৬:২৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৪, ২০২০ | আপডেট: ৬:২৪:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৪, ২০২০
ফাইল ছবি

মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে দেশের সকল শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ দিন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা যেন কোনো ব্যাঘাত না ঘটে সে জন্য টেলিভিশনে পাঠদান কার্যক্রম সম্প্রচার শুরু করে সরকার। এবার সেই ধারাবাহিকতায় প্রাথমিকের প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির বিষয়ভিত্তিক শ্রেণি কার্যক্রম (ক্লাস) বাংলাদেশ বেতারসহ কমিউনিটি রেডিওগুলোতে সম্প্রচার শুরু হবে।

জানা যায়, চলতি সপ্তাহেই এই কার্যক্রম শুরু হবে। প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীসহ সব শিক্ষার্থীর লেখাপড়া নিশ্চিত করতে এ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ বিসয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ্ বলেন, ‘রেকর্ডিং শুরু হয়েছে। চলতি সপ্তাহে একটা দিন নির্ধারণ করে সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হবে।’

তিনি আরও জানান, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের প্রথম রেডিওতে যুক্ত হচ্ছে প্রাথমিকের শ্রেণি কার্যক্রম। প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি অবগত হবেন। তারপর শুরু হবে।

অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, অভিভাবকদের মোবাইলের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের এন্ট্রি নিশ্চিত করা হবে। প্রতিটি ক্লাসের শেষে বিষয় কোট সেন্ড করতে হবে অভিভাবকদের। এই ব্যবস্থায় জানা যাবে কতজন শিক্ষার্থী বেতারের ক্লাসে অংশ নিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, ‘শিক্ষার্থীর তথ্য সংরক্ষণে সফটওয়্যার প্রস্তুত করা হয়েছে।’

শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে ফসিউল্লাহ্ বলেন, ‘এখন সফটওয়্যারের মাধ্যমে যে জরিপ আমরা করেছি, তাতে দেখা গেছে, শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৪৫ শতাংশের বাড়িতে টেলিভিশন রয়েছে। এমনও বাড়িতে টেলিভিশন রয়েছে যেখানে প্রাথমিকের শিক্ষার্থী নেই। ১৪ থেকে ১৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পাশের বাড়িতে গিয়ে টেলিভিশনে অংশ নিচ্ছে। গড়ে ৬০ শতাংশ শিক্ষার্থী টেলিভিশনের শ্রেণি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারছে। মোবাইল ফোনের জরিপে এখন পর্যন্ত ৫০ হাজার শিক্ষার্থী জরিপ করে দেখা গেছে, ৯৫ শতাংশ শিক্ষার্থীকে কন্টাক্ট করা সম্ভব হবে। এই জরিপ সম্পন্ন হলে আমরা আপনাদের জানিয়ে দেবো।’

মহাপরিচালক জানান, বেতারের কনটেন্ট অনেক উন্নত করা হয়েছে। বেতারের সহায়তায় কম টাকায় পর্যাপ্ত কনটেন্ট রেডি করা যাচ্ছে। ইউনেস্কোর সহায়তা দিচ্ছে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। সময় ও বিশেষজ্ঞদের সম্মানী দেওয়ার জন্য কিছু টাকা লাগবে। শিক্ষকদের সম্মানী বাড়ানো হয়েছে। ঢাকার শিক্ষকরা পাবেন সাড়ে তিন হাজার টাকা। আর ঢাকার বাইরে থেকে এলে পাবেন সাড়ে চার হাজার টাকা। বেতারে গিয়ে রেকর্ডিং করতে হবে শিক্ষকদের। একদিনে একজন শিক্ষককে দিয়ে দুই থেকে তিনটি কনটেন্ট করা হবে। যদি দূর থেকে শিক্ষক আনা হয় সে ক্ষেত্রে থাকার ব্যবস্থা করা হবে। সেটা পরে করা হবে।