চামড়া নিয়ে সমস্যায় পড়লে যা করবেন

প্রকাশিত: ১:১৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১, ২০২০ | আপডেট: ১:১৮:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১, ২০২০

ত্যাগ আর উৎসর্গের আদর্শে মহিমান্বিত হয়ে আজ সারাদেশে পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম জাহানের জন্য খুশির বার্তা নিয়ে বছর ঘুরে আবারও ফিরে এসেছে ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা। বাঙালি সমাজে ‘কোরবানির ঈদ’ নামেও পরিচিত মুসলমানদের এই অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা আজ ত্যাগের মহিমায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ঈদের নামাজ শেষে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি আদায়ে পশু কোরবানি দিচ্ছেন।

এবার ঈদ এসেছে এক ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। করোনা মহামারির সঙ্গে বন্যার আঘাতে বিপর্যস্ত দেশের বিভিন্ন প্রান্তের অগণিত মানুষ। তাদের জীবনের ওপর নেমে আসা এ দুঃসময়ের অন্ধকার কবে কাটবে, তাও অজানা।

দেশের এমন পরিস্থিতিতে কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে অনেক সময় মানুষের সমস্যায় পড়ার সম্ভাবনা তৈরী হয়েছে। বিশেষ করে, গত বছর এত সমস্যা না থাকা স্বত্বেও অনেক চামড়া নষ্ট হয়েছে বলে খবর রয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কাছে। তাই চামড়া নিয়ে যেকোনো সমস্যায় জনগণকে সহায়তা করতে উদ্যোগ নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এ জন্য একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ (কন্ট্রোল সেল) খোলা করেছে।

জানা গেছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এই সেল চামড়া সংরক্ষণ, বেচাকেনা ও পরিবহন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যার সমাধান দেবে। গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানায়।

উল্লিখিত সহায়তা পেতে হলে সংশ্লিষ্ট নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। নম্বরগুলো হচ্ছে- ০১৭১১-৭৩৪২২৫, ০১৭১৬-৪৬২৪৮৪, ০১৭১৩-৪২৫৫৯৩ এবং ০১৭১২-১৬৮৯১৭। সহায়তার জন্য কন্ট্রোল সেলে চারজন কর্মকর্তা সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, গত বছর কোরবানির পশুর চামড়ার দাম ৩১ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন ছিল। নূন্যতম দামও না পেয়ে অনেকে পশুর চামড়া নদীতে ফেলে দেন কিংবা মাটিতে পুঁতে রাখেন।

বাণিজ্যসচিব মো. জাফর উদ্দীন বলছেন, এবার যাতে সে ধরনের পরিস্থিতির তৈরি না হয়, তাই আগে থেকে এ ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এবার চামড়া ক্রেতা–বিক্রেতা উভয়পক্ষের স্বার্থই দেখা হয়েছে। বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তারা সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। যেকোনো মূল্যে গতবারের পরিস্থিতি এবার হতে দেওয়া হবে না বলে জানান তিনি।