চায়ের রাজ্যে প্রতীকের তিন দিনব্যাপী নাট্য কর্মশালা

প্রকাশিত: ৭:৩৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ | আপডেট: ৭:৩৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯
ছবি; টিবিটি

স্থানটা চায়ের রাজ্যখ্যাত হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার পাইকপাড়া ইউনিয়নের দেউন্দি চা-বাগানের বটতলা মন্দির। উপলক্ষটা এ বাগানে প্রতিষ্ঠা পাওয়া প্রতীক থিয়েটারের উদ্যোগে তিনদিনব্যাপী নাট্য কর্মশালা।

শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) এ কর্মশালার শুরু হয়। ১৫ সেপ্টেম্বর এর সমাপনী। বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ রিংকু কর্মশালা পরিচালনা করছেন। কর্মশালায় বাগানের বাসিন্দার ৪৫ জন সন্তান অংশগ্রহণ করেছে।

এ ব্যাপারে প্রতীক থিয়েটার সভাপতি সুনীল বিশ্বাস বলেন- কর্মস্থল থেকে বাসায় ফিরে নাটক লেখা চা-শ্রমিকদের জন্য। চা-শ্রমিকরাও মানুষ। তাদের জীবন রয়েছে। তারাও এদেশের বাসিন্দা। তাদের শ্রমে অর্জিত হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রা। তারা কেন অবহেলায় পড়ে থাকবে। তাই প্রতীক থিয়েটারের নাঠ্যকর্মের মাধ্যমে শ্রমিকদের সুখ দুঃখ ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, প্রতীক থিয়েটার আজ বাগানেই সীমাবদ্ধ নয়। এ পথ পেরিয়ে পা রাখছে ৩৩তম বছরে। এরমধ্যে এ থিয়েটারের অর্ধশতাধিক সদস্য বয়ে নিয়ে এসেছেন নানাভাবে সফলতা।

এবার নতুন নাট্যকর্মী তৈরী করতে তিন দিনব্যাপী নাট্য কর্মশালার আয়োজন। এখান থেকে অভিজ্ঞতা নিয়ে তারা নাট্যচর্চায় নিজেদেরকে এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ রিংক বলেন, এখানে এসে অত্যন্ত ভালো লেগেছে। কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীরা মনযোগী। তাদের আগ্রহ আছে। আমার বিশ্বাস তারা লক্ষে পৌঁছতে পারবে।

থিয়েটারের শিশু শিল্পী প্রিয়াংকা বাউড়ি, বর্ষা ঘোষ, পপি বাউড়িরা বলেন, আমরা বাগানের হলেও এদেশের মানুষ। সংগীত, নাটক, নৃত্যের মাধ্যমে চা-শিল্পের ঐতিহ্যকে ধরে রেখে আরো এগিয়ে যেতে চাই।

তার সাথে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ রিংকু স্যারের প্রশিক্ষণ পেয়ে আমরা ও আমাদের নবীনরা অনেক কিছু জানতে পারছি। উল্লে¬খ্য, জেলার নবীগঞ্জ, বাহুবল, চুনারুঘাট, মাধপুরের পাহাড়ি এলাকায় দেউন্দিসহ প্রায় ৩৫টি চা-বাগান রয়েছে।