চীনের ভেটোতে সন্ত্রাসী তালিকায় পড়লেন না জইশের মাসুদ আজহার

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০১৯ | আপডেট: ১২:৪৮:পূর্বাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০১৯
জইশ-ই মোহাম্মদ নেতা মাসুদ আজহার।

বুধবার রাতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে চীনের ভেটোতে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরের মৌলবাদী সংগঠন জইশ-ই মোহাম্মদ নেতা মাসুদ আজহারকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী ঘোষণা করে নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব ভেস্তে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, রাশিয়া, ব্রিটেনসহ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য রাষ্ট্রগুলো ভারতের পাশে দাঁড়ালেও চীনের প্রাচীরে আটকে যায় সেই উদ্যোগ। এতে হতাশা প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ।

তবে মাসুদ আজহারকে নিষিদ্ধ তালিকায় আনার এই চেষ্টা প্রথম নয়। গত এক দশকে ভারত সরকার এ বিষয়ে নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য রাষ্ট্রগুলোর কাছে বারবার দ্বারস্থ হয়েছে। প্রত্যেক বারই হোঁচট খেতে হচ্ছে বেইজিংয়ের আপত্তিতে।

পুলওয়ামায় সন্ত্রাসী হামলায় ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর প্রায় অর্ধশত সদস্য নিহত হওয়ার পর ফের সক্রিয় হয় দেশটি। ভারতের অনুরোধে মাসুদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে যুক্তরাষ্ট্র উঠে পড়ে লেগেছিল। সেই সঙ্গে সক্রিয় হয়েছিল পশ্চিমা বিশ্বের অন্য দেশগুলোও।

কিন্তু এই চাপের মধ্যেও চীনের সমর্থন মেলেনি। প্রস্তাব পেশ হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগেই এমন ইঙ্গিত মিলে। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এই বিষয়টির মীমাংসা ‘প্রত্যেকের কাছে গ্রহণযোগ্য’ হওয়া প্রয়োজন। সে দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর মুখপাত্র লু কাং বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি, আবারও বলছি, দায়িত্বশীল রাষ্ট্রের মতো আচরণ করবে চীন’

চীনের বিপরীত অবস্থানে দাঁড়িয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র রবার্ট পালাডিনো জানান, ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী হিসেবে ঘোষণা করার যে কয়টি শর্ত প্রয়োজন, তার সবগুলোই মাসুদ আজহারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।’

কিন্তু শেষ পর্যন্ত চীনের বাধায় মাসুদ আজহারকে নিষিদ্ধ করা নিয়ে সংশ্লিষ্ট কমিটিতে ঐকমত্য হয়নি। প্রস্তাবে আপত্তি জানানোর সময়সীমা শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা আগে চীন জানায়, এই প্রস্তাব বিবেচনা করতে তাদের আরও সময় প্রয়োজন। এ নিয়ে চার বার এই উদ্যোগ আটকে দিল বেইজিং।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক বিবৃতিতে সমর্থনকারী দেশগুলিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, ‘আমরা হতাশ। এর ফলে জম্মু-কাশ্মীরের সাম্প্রতিক হামলার প্রেক্ষিতে মাসুদের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক স্তরে পদক্ষেপ করার পথ বন্ধ হয়ে গেল।’

বিশেষজ্ঞদের মতে, চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরটি যে এলাকার উপর দিয়ে গিয়েছে, সেখানে জইশ-এর দাপট প্রবল। ফলে মাসুদ-বিরোধিতা করতে চায় না বেইজিং।