চুয়াডাঙ্গায় লাফিয়ে বাড়ছে করোনায় মৃত্যুর হার জীবননগর উপজেলা লকডাউন

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:২২ অপরাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২১ | আপডেট: ৯:২২:অপরাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২১

মামুন মোল্লা, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গায় প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা মহামারীর প্রদূর্ভাব। সীমান্তবর্তী উপজেলায় ভারত থেকে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের জন্য ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ছে এলাকাগুলোতে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা জীবননগর উপজেলাকে কঠোর লকডাউনের আওতায় আনতে প্রশাসনের প্রতি কঠোর হুশিয়ারি দিয়েছেন।

সেই সাথে চুয়াডাঙ্গায় দিনি দিন করোনায় মৃত্যুর মিছিল ও দীর্ঘতর হচ্ছে। গতকাল সদর উপজেলার একজন ও জীবননগর উপজেলার দুজনসহ করোনা আক্রান্ত নতুন তিনজনের মৃত্যু হয়েছে, এছাড়াও করোনা শনাক্ত হয়েছে দামুড়হুদা উপজেলায় পূর্বে উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া আরও দুজনের নমুনায়। এনিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৯ জনে।

গতকাল জেলার ৬৯টি নমুনা পরীক্ষায় ৬৪ জনের ফলাফল পজেটিভ এসেছে। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৯২.৭৫ শতাংশ। যা এযাবৎ কালের নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় সর্বোচ্চ শনাক্তের হার। নতুন আক্রান্ত ৬৪ জনসহ জেলায় এ পর্যন্ত মোট ২ হাজার ৭৯৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন । গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা আক্রান্ত পাঁচজনের মৃত্যু ও নতুন শনাক্ত ৬৪ জনের বিষয়ে নিশ্চিত করে চুয়াডাঙ্গা জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ২২ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ১০ জন, দামুড়হুদা উপজেলার ১০ জন ও জীবননগর উপজেলার ২২ জন। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২ হাজার ৭৯৬ জন। আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার ১ হাজার ২৯৮ জন, আলমডাঙ্গার ৪৫৬ জন, দামুড়হুদায় ৬৮৫ জন ও জীবননগরে ৩৫৭ জন।

গত সোমবার জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য ১৩৫টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করে। গতকাল উক্ত নমুনা ও পূর্বের পেন্ডিং নমুনার মধ্যে কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষাকৃত মোট ৬৯টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ। এরমধ্যে ৬৪ জনের করোনা ফলাফল পজিটিভ আসে, বাকী ৫টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ।

এছাড়া গতকাল জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য আরও ২৪২টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করেছে। তবে এখন পর্যন্ত কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে গতকালের ২৪২টি নমুনাসহ চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রেরণকৃত ৬৬২টি নমুনার ফলাফল পেন্ডিং রয়েছে। গতকাল জেলা থেকে দামুড়হুদা উপজেলা থেকে ১০ জন সুস্থ হয়েছে। এনিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ২০ জন। এরমধ্যে সদর উপজেলার ১ হাজার ১১ জন, আলমডাঙ্গার ৩৫০ জন, দামুড়হুদার ৪৩৯ ও জীবননগরে ২২০ জন। জেলায় বর্তমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে হোম ও হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬৮৭ জন।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ১২ হাজার ২৮৯টি, প্রাপ্ত ফলাফল ১১ হাজার ৬২৭টি, পজিটিভ ২ হাজার ৭৯৮ জন।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গায় ৬৮৭ জন করোনাক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন। এরমধ্যে সদর উপজেলায় অবস্থানকালে আক্রান্ত হয়েছেন ২৫৪ জন, আলমডাঙ্গায় ৮৭ জন, দামুড়হুদায় ২১৮ জন ও জীবননগরে ১২৮ জন।

আক্রান্তদের মধ্যে বর্তমানে ৬৩০ জন হোম আইসোলেশনে আছেন। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ২৩২ জন, আলমডাঙ্গায় ৭৯ জন, দামুড়হুদায় ২০০ জন ও জীবননগরে ১১৯ জন।

প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আছেন সদর উপজেলার ২১ জন, আলমডাঙ্গার ৭ জন, দামুড়হুদার ১৬ জন ও জীবননগরের ৯ জন জনসহ মোট ৫৩ জন। চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৯০জনের। এরমধ্যে সদর উপজেলার ৩২ জন, আলমডাঙ্গায় ২০ জন, দামুড়হুদায় ৩০ জন ও জীবননগরে ৮ জনসহ ৯০ জন।

চুয়াডাঙ্গায় আক্রান্তদের ম্যধে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে। উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলার বাইরে চিকিৎসাধীন রয়েছে অন্য ৪ জন।