জনসনের টিকার প্রয়োগ স্থগিত করলো যুক্তরাষ্ট্র

রক্তে জমাট বেঁধে যাচ্ছে এই টিকা ব্যবহারে

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৩৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০২১ | আপডেট: ৬:৩৮:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০২১

জনসন অ্যান্ড জনসনের করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া বন্ধ করতে আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ (এফডিএ)।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, এই টিকা নেওয়ায় বিরল রক্তজমাট বাঁধার ঘটনার পর মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) এমন সিদ্ধান্ত এসেছে।

মার্কিন এফডিএ জানিয়েছে, ঝুঁকি এড়াতে তারা ব্যাপক সতর্কতা অবলম্বন করছে। যে কারণে এমন সুপারিশ করা হয়েছে।

এফডিএ বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত জনসন অ্যান্ড জনসনের ৬৮ লাখ ডোজ টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ছয় জনের রক্ত জমাট বাধার ঘটনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনেও রক্ত জমাট বাধার খবর পাওয়া যায়। আর সেই খবরের পরও টিকাটির ব্যবহার সীমিত হয়ে পড়ে।

মার্কিন নিয়ন্ত্রক সংস্থা এফডিএ’র একাধিক টুইট বার্তায় জানানো হয়েছে, দেশটির রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) এবং তারা মিলে মোট ছয়টি ঘটনা পর্যবেক্ষণ করছে। এসব ঘটনায় টিকাটি গ্রহণের পর বিরল এবং মারাত্মক ধরনের রক্ত জমাট বেধে যেতে দেখা গেছে। এই মুহূর্তে এসব বিরুপ প্রতিক্রিয়া চরম বিরল বলে দেখা যাচ্ছে। টুইট বার্তায় বলা হয়েছে, ‘আগাম সতর্কতা হিসেবে আমাদের সুপারিশ হলো টিকাটি ব্যবহার স্থগিত রাখা হোক।’

এফডিএ এবং সিডিসির এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রক্ত জমাট বাধার এই ঘটনাটি হলো চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় সেরেব্রাল ভেনাস সাইনাস থ্রমবোসিস বা সিভিএসটি। মস্তিষ্ক থেকে পরিবহনের নালীতে রক্ত জমাট বাধার ঘটনা বোঝাতে এই টার্মটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই ধরনের রক্ত জমাট বাধার চিকিৎসার জন্য প্রচলিত ব্যবস্থার চেয়ে আলাদা ধরনের চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ে। রক্ত জমাট বাধার চিকিৎসায় হেপারিন নামে পরিচিত একটি ওষুধ ব্যবহার হলেও এই ধরনের বিরল ক্ষেত্রে ওই ওষুধের ব্যবহারের পরিণতি মারাত্মক হতে পারে জানানো হয়েছে ওই বিবৃতিতে।