জন্মের আগেই ৫০ হাজার টাকায় সন্তান বিক্রি!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০১৯ | আপডেট: ১২:০৪:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০১৯

গর্ভধারণের চার মাসের মাথায় অনাগত সন্তানকে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রির চুক্তি করেন মা জোসনা বেগম। সেই সন্তান কিনতে তিন হাজার টাকা অগ্রিম দেন তার পরিচিত সোনিয়া বেগম।

তবে সন্তান জন্মের পর বেধেছে গোল। হাসপাতাল, পুরিশ ও দুই নারীর বক্তব্যে জানা যাচ্ছে, দুই দিন আগে একটি ছেলেসন্তান জন্ম দেন জোসনা বেগম। চুক্তিমতো সেই সন্তান নিতে হাসপাতালে যান সোনিয়া। তবে সন্তান দিতে অস্বীকার করেন জোসনা বেগম। এই নিয়ে দুই নারীর মধ্যে শুরু হয় বচসা। শেষমেশ ঘটনা গড়ায় থানা পুলিশ।

বুধবার সন্ধ্যায় সোনিয়া আর জোসনার স্বামীকে নিয়ে যায় শাহবাগ থানা পুলিশ। এ প্রতিবেদন লেখার সময় (রাত সাড়ে ১০টা) তারা সেখানেই ছিলেন।

নবজাতকের মা জোসনা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, মঙ্গলবার (২৯ জানুয়ারি) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে তার একটি পুত্রসন্তান হয়। তিনি ওই হাসপাতালের গাইনি বিভাগে ভর্তি রয়েছেন।

কমলাপুর স্টেশনে একটি হোটেলে পানি দেয়ার কাজ করেন জোসনা। সেখানেই তার পরিচয় সোনিয়ার সঙ্গে। তখন জোসনা চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। ওই সময় সোনিয়া অনাগত সন্তানকে কিনতে ৫০ হাজার টাকার প্রস্তাব করেন। পরে শারীরিক চিকিৎসার জন্য জোসনাকে তিন হাজার টাকা দেন সোনিয়া। আর মাঝে মাঝে যোগাযোগ রাখতেন তার সঙ্গে।

সোনিয়া সাংবাদিকদের বলেন, পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজার এলাকায় পরিবারের সঙ্গে থাকেন তিনি। জোসনা একসময় তার বাসায় কাজ করতেন। তার সমস্যার (অন্তঃসত্ত্বা) কারণে তাকে চিকিৎসার জন্য তিন হাজার টাকা দিয়েছেন দাবি করে সোনিয়া বলেন, আজ জোসনা তাকে ফোন করে আসতে বলেন। তাই সকাল হাসপাতালে যান তিনি। সারা দিন তার পাশেই ছিলেন। সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগের ওয়ার্ডে জোসনার দ্বিতীয় স্বামী টুকু মিয়ার অভিযোগে আনসার সদস্যরা তাকে আটক করেন।

জোসনা বেগম দ্বিতীয় স্বামী টুকুকে নিয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনে থাকেন। তার প্রথম ঘরের এক ছেলেকে এতিমখানায় দিয়েছেন।

জানতে চাইলে শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক ভজন বিশ্বাস এ ব্যাপারে বলেন, ‘সোনিয়া ও জোসনার স্বামীকে থানায় রেখে একটি কাজে বাইরে এসেছি। শুনেছি সোনিয়ার কাছ থেকে টাকা নিয়েছে জোসনা। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে বিস্তারিত বলতে পারব।’
Add Image