জমি নিয়ে বিরোধের জের বড়লেখায় যুবকের আঙুল কেটে ফেলা ও পা ভেঙ্গে দেয়ার মামলায় গ্রেফতার ২

আব্দুর রব আব্দুর রব

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৯:০০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | আপডেট: ৯:০০:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

বড়লেখায় ভুমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে শ্বশুর বাড়ির লোকজন সাবুল আহমদ ছাদ (৩৫) নামে এক যুবকের হাতের চারটি আঙুল কেটে ফেলে ও একটি পা ভেঙ্গে দেয়। এঘটনায় আহত যুবকের স্ত্রী জাহানারা বেগম ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। শুক্রবার পুলিশ এ মামলার ২ আসামীকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে। এরা হচ্ছে মামলার ১ নম্বর আসামি সমছুল ইসলাম ও ৪ নম্বর আসামি সেলিম উদ্দিন।

জানা গেছে, উপজেলার বড়খলা গ্রামের সাবুল আহমদ ছাদের সঙ্গে পাশের গৌরনগর গ্রামের চাচা শ্বশুর নূর আলী ও তার ছেলে সামছুল ইসলাম গংদের সঙ্গে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। গত ৮ জানুয়ারী সকাল আটটার দিকে সাবুল আহমদ ছাদের স্ত্রী জাহানারা বেগম সন্তানদের নিয়ে শ্বশুর বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে চাচাতো ভাই সামছুল ইসলাম গংরা তার ওপর হামলা চালায়।

খবর পেয়ে জাহানারার স্বামী ছাদ স্ত্রীকে বাঁচাতে ছুটে আসেন। এসময় বিবাদীরা দা ও রড দিয়ে তার ওপর হামলা চালায়। তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে দা দিয়ে মাথায় কোপ দিলে তার ডান হাতে লেগে চারটি আঙুল কেটে যায়। পরে তিনি মাটিতে পড়ে যান। তখন রড দিয়ে তার হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাত করা হয়। এতে তার বাম পা ভেঙে যায়। আহত অবস্থায় স্বজনরা ছাদকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে দুদিন চিকিৎসা দিয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় চিকিৎসকরা তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। তিনি বাড়িতে বিছানায় অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন।

আহত সাবুল আহমদ ছাদের স্ত্রী জাহানারা বেগম জানান, আমার চাচাতো ভাইদের সঙ্গে আমার স্বামীর জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলছে। ঘটনার দিন বাবার বাড়ি যাওয়ার পথে আমার চাচাতো ভাইয়েরা হামলা চালায়। খবর পেয়ে আমার স্বামী আমাকে বাঁচাতে এলে তারা তাকে দা দিয়ে তার হাতের চারটি আঙুল কেটে ফেলে। রড দিয়ে পিটিয়ে তার বাম পাও ভেঙে দেয়। তাকে (ছাদকে) উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে দু’দিন চিকিৎসা দিয়ে করোনা ভাইরাসের কারণে ডাক্তাররা তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছেন। এখন তিনি হাত ও পায়ের যন্ত্রণায় বিছানায় কাতরাচ্ছেন। এঘটনায় ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছি।

বড়লেখা থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) মো. ইয়াকুব হোসেন দুই আসামিকে গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ‘তাদের শুক্রবার বিকেলে তাদের আদালতের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’