টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে নিষিদ্ধ হতে পারে দক্ষিণ আফ্রিকা!

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:১১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১ | আপডেট: ৯:১১:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১

আবারও ক্রিকেটবিশ্বে নিষিদ্ধ হওয়ার হুমকিতে আছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দেশটির সরকার ও ক্রিকেট বোর্ডের মধ্যে মতানৈক্য চরমে উঠেছে। এটা মোটেও ভালোভাবে নিচ্ছে না আইসিসি। খুব দ্রুত এই অভ্যন্তরীণ সমস্যার সমাধান না হলে দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট বোর্ডকে নিষিদ্ধ করা হতে পারে। এবার দেশের ক্রিকেটকে বাঁচাতে মুখ খুললেন তিন অধিনায়ক।

চলমান সঙ্কটকে সামনে রেখে আইসিসির থেকে সম্ভাব্য স্থগিতাদেশের বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে একটি যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন দেশটির ৩ ফরম্যাটের ৩ অধিনায়ক- ডিন এলগার, টেম্বা বাভুমা এবং ড্যান ভ্যান নিকার্ক।

দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি খায়া জোন্ডো সাক্ষরিত বিবৃতিতে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে যে, বর্তমান অচলাবস্থার সমাধান না হলে দক্ষিণ আফ্রিকা অক্টোবরে-নভেম্বরে ভারতে আয়োজিত হতে চলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারবে না।

অধিনায়করা বিবৃতিতে বলেছেন, ‘এমন এক সময়ে যখন আমাদের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে উচ্ছ্বসিত হওয়া উচিত ছিল, কিন্তু আমরা ভবিষ্যতের বিষয়ে উদ্বিগ্ন। দক্ষিণ আফ্রিকার পুরুষ দলকে নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে হবে। প্রশাসনের বর্তমান অবস্থা আমাদের প্রস্তুতিকে প্রভাবিত করছে। অচলাবস্থা চলতে থাকলে আইসিসি দক্ষিণ আফ্রিকাকে নির্বাসিত করতে পারে। তেমন হলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারব না। সেটা কিন্তু আমাদের জন্য মোটেও গর্বের ব্যাপার নয়। ‘

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার (সিএসএ) নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার। আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ক্রিকেট বোর্ডে সরকারি হস্তক্ষেপ অবৈধ। বোর্ডের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সরে দাঁড়ানোর জন্য তখন দক্ষিণ আফ্রিকার স্পোর্টস কনফেডারেশন ও অলিম্পিক কমিটি যৌথভাবে সিএসএকে একটি চিঠিও দিয়েছিল।

সিএসএ’র বিরুদ্ধে অনেক আগে থেকেই অসৎ আচরণ ও দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হচ্ছে। তাদের এসব কর্মকাণ্ডের কারণে ক্রিকেটের প্রতি দেশের মানুষ, স্পনসর আর খেলোয়াড়েরা আস্থা ও বিশ্বাস হারিয়েছে বলেও অভিযোগ তুলেছিল সে দেশের স্পোর্টস কনফেডারেশন ও অলিম্পিক কমিটি। পরে এর একটা সাময়িক সমাধান টানলেও সমস্যার শেষ হয়নি। এর আগে বর্ণবাদের কারণে প্রায় ২২ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা।