‘ডিম খেলে হৃদরোগের ভয় নেই’

প্রকাশিত: ৪:৫০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯ | আপডেট: ৪:৫০:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

ডিম পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ একটি আদর্শ খাবার। ডিমের মধ্যে রয়েছে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ উপাদান। কিন্তু ডিম সম্পর্কে দেশের বেশিরভাগ মানুষের কিছু ভ্রান্ত ধারণা আছে।

অনেকে মনে করেন ডিম খেলে হৃদরোগ বেড়ে যায়, কিন্তু কথাটি সত্য নয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ব ডিম দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. নাথু রাম সরকার।

তিনি আরও বলেন, ডিম অ্যামাইনো অ্যাসিড, ভিটামিন এ, বি৫, বি১২, বি৬, ডি, ই, কে, ফোলেট, ফসফরাস, সেলিনিয়াম, ক্যালিয়াম ও জিংক সমৃদ্ধ একটি পরিপূর্ণ খাবার। আর ডিমের কুসুম হলো সকল পুষ্টির আধার। তাই বিভ্রান্ত না হয়ে প্রাণীজ আমিষের চাহিদা মিটিয়ে কর্ম ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য দেশের মানুষের প্রতিদিন একটি ডিম খাওয়া উচিত।

আলোচনা সভায় পোল্ট্রি বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. ইলিয়াস হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভিসি অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পশুপালন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নুরুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. নাথু রাম সরকার। এছাড়াও পশুপালন অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকমন্ডলীসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ‘সুস্থ মেধাবী জাতি চাই, প্রতিদিনই ডিম খাই’ স্লোগানকে সামনে রেখে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদের পোল্ট্রি বিজ্ঞান বিভাগের আয়োজনে সকাল ১০টার এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি পশুপালন অনুষদ থেকে শুরু হয়ে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে এসে শেষ হয়। এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে কে বি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের ডিম খাওয়ানো হয়।