ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক দিয়ে নির্বিঘ্নে ফিরবেন মানুষ, দাবি সংশ্লিষ্টদের

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮ | আপডেট: ৫:৪০:পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮

টিবিটি সারাদেশ: অবস্থার অনেকটা উন্নতি হলেও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের অন্তত দশটি পয়েন্ট রয়েছে যেখান থেকে গাড়ি পারাপার হতে অনেকটাই বেগ পেতে হবে। আসছে কোরবানির ঈদ।

তাই বাড়ি ফেরা মানুষের পাশাপাশি উল্টো পথে থাকবে পশুবাহী গাড়ির চাপ। ফলে চিন্তা আরও বেশি এই পয়েন্টগুলো নিয়ে। তবে সড়ক ও জনপদ কর্তৃপক্ষ বলছে, বিষয়গুলো মাথায় রেখেই নির্বিঘ্ন সেবার পরিকল্পনা সাজিয়েছেন তারা। আর হাইওয়ে পুলিশ বলছে বিশেষ এসব স্থানের ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে থাকবে বিশেষ ব্যবস্থা।

মহাসড়কে এক সময়ের আতঙ্কের নাম ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক চিত্র এখন অনেকটাই অন্যরকম। তবে কাজ শেষ না হওয়ায় পুরোপরি সুফল পাওয়া যাচ্ছে না এখনো। তাইতো আসছে কোরবানির ঈদে এই পথে দ্বিগুণ চাপ সামলে কেমন হবে ঈদ যাত্রা কিছুটা সংশয় থেকেই যাচ্ছে।

ঢাকা টাঙ্গাইল মহাসড়কে চন্দ্রা মোড় পাড় হলেই হাঁটুভাঙ্গা বাজার, দেওহাটা, মির্জাপুর বাইপাস, করাতিপাড়া বাইপাস, গারিন্দা বাইপাস, রবনা বাইপাস, উপজেলা পরিষদ মোড়, থেকে এলেঙ্গা বাজার। এই আটটি মোড়ে চার লেন এখনো অসম্পূর্ণ।

ফলে যখন, বাড়িফেরা মানুষের পাশাপাশি পশুবাহী পরিবহনের চাপ থাকবে তখন দেখা দিতে পারে যানজট। এছাড়া এ পথে দুটি রেল ক্রসিংও থাকবে যানজটের শঙ্কা।

সড়ক ও জনপদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শফিকুর ইসলাম বলেন, ঈদের সময় যাতে যাত্রীরা ভোগান্তিতে না পড়েন সেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হাইওয়ে পুলিশ বলছে বিশেষ এসব পয়েন্টে থাকবে নজরদারিতে। তাছাড়া রুট পারমিট ছাড়া কোনো গাড়ি মহাসড়কে চলতে পারবে না জানিয়ে তারা বলছেন পশুর ট্রাক ফিরে যাবার সময় কোনো যাত্রী পরিবহন করতে পারবে না।

হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি আতিকুল ইসলাম বলেন, ঈদের সময় ফিটনেসবিহীন কোনো গাড়ি রাস্তায় চলাচল করতে পারবে না। লোকাল গাড়িও হাইওয়েতে চলাচল করতে পারবে না।

এছাড়া এবার মহাসড়ক কেন্দ্রিক কোনো পশুর হাট গড়ে উঠতে দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।