তজুমদ্দিনের চরে গভীর রাতে সশস্ত্র মহড়া, উড়ছে লাল নিশান

আতঙ্কিত শত শত কৃষক

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১ | আপডেট: ৮:৫৪:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১

ভোলার তজুমদ্দিনের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ চরমোজাম্মেল দখলের উদ্দেশ্যে গভীর রাতে সশস্ত্র মহড়া দিয়ে আতংক সৃষ্টি করেছে নোয়াখালীর সুবর্ণ চরের খোকন বাহিনী।

বুধবার দিবাগত রাতে খোকনের নেতৃত্বে ৪০/৫০ জনের বাহিনী চরের ঘুমন্ত মানুষের উপর হামলা চালিয়ে এলোপাথাড়ি মারপিট ও ঘরবাড়ি ভাংচুর করে চরের মধ্যে লাল নিশান উড়িয়ে দিয়ে চলে যায়।

এ ঘটনায় নারী পুরুষ সহ ১৫ জন আহত হলে তাদেরকে চরে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

তজুমদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম জিয়াউল হক বলেন, ‘বুধবার গভীর রাতে চরমোজাম্মেলে বহিরাগতদের প্রবেশ করার সংবাদ পেয়েছি। সকালে স্পিডবোর্ড যোগে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

চরের বাসিন্দারা জানান, মেঘনার ভাঙনে অসহায় হয়ে ১৫ বছর আগে স্বপরিবারে তজুমদ্দিনের এই চরে তারা বসবাস করছেন। মাঝে মাঝে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা সশস্ত্র হামলা চালিয়ে লুটপাট ও মারপিট করে। বুধবার গভীর রাতে চরমোজাম্মেল মুক্তিযোদ্ধা বাজার সংলগ্ন উত্তর পাশে ঘুমন্ত চরবাসীর উপর খোকন বাহিনী হামলা করে প্রায় ৫০০ একর জমিতে লাল নিশান টাঙিয়ে দেয়।

চাঁদপুর ইউনিয়নের চরমোজাম্মেল ৬নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর পাটওয়ারী জানান, নদীভাঙা অসহায় মানুষগুলোই মেঘনায় জেগে ওঠা চরগুলোতে বসবাস করেন। চরমোজাম্মেলের প্রায় ১০ হাজার মানুষের নিরাপত্তা প্রয়োজন।

চাঁদপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুল আলম জাহাঙ্গীর জানান, প্রায় সময়ই চরের নিরীহ মানুষের ওপর বহিরাগতরা হামলা ও লুটপাট চালায়। চরবাসী আতঙ্কে রয়েছে, নিরাপত্তার জন্য পুলিশ ক্যাম্প প্রয়োজন।