তামিমকে নিয়ে চিন্তিত প্রধান কোচ

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৩৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০ | আপডেট: ৯:৩৮:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০
ফাইল ছবি

দেশের সেরা ওপেনার, সর্বোচ্চ রান আর সেঞ্চুরির মালিকটির নাম তামিম ইকবাল। কিন্তু গত ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর থেকে ছন্দ হারিয়েছেন। ফর্মহীনতার সঙ্গে একাধিকবার আক্রান্ত হয়েছেন ইনজুরিতে। সদ্য সমাপ্ত বঙ্গবন্ধু বিপিএলে ৩৯.৬০ গড়ে তার সংগ্রহ ৩৯৬ রান। কিন্তু স্ট্রাইক রেট মাত্র ১০৯.৩৯! অধিকাংশ ম্যাচেই পাওয়ার প্লেতে ৬০/৭০ স্ট্রাইক রেটে খেলেছেন। আসন্ন পাকিস্তান সফরে তামিমের এই ব্যাটিং স্টাইল নিয়ে চিন্তায় আছেন দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

বিপিএলে তিন’শ এর বেশি রান করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল স্ট্রাইক রেট তামিম ইকবালের! পাকিস্তান সফরে জাতীয় দলে ওপেনিং পজিশনের জন্য যে চার ক্রিকেটার ডাক পেয়েছেন, তাদের মধ্যেও তামিমের স্ট্রাইক রেট তলানিতে।

বিপিএলে জাতীয় দলের ওপেনারের মন্থর ব্যাটিং দৃষ্টি কেড়েছে সবার। ২২ গজে ঝড় উঠছে কালেভাদ্রে। আগ্রাসী, আক্রমণাত্মক শব্দগুলো হয়ে উঠেছে প্রতিশব্দ। ঝুঁকি নিচ্ছেন কম। দ্রুত রান তোলার তাড়াও দেখান না। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এমন ব্যাটিং বিদঘুটে!

বিপিএল তামিমের রান ৩৯৬। গড় রান ৩৯.৬০, স্ট্রাইক রেট ১০৯.৩৯। লিটন কুমার দাস রান করেছেন ৪৫৫, স্ট্রাইক রেট ১৩৪.৩১। একমাত্র স্থানীয় ক্রিকেটার হিসেবে সেঞ্চুরি হাঁকানো নাজমুল হোসেন শান্তর রান ৩০৮, স্ট্রাইক রেট ১৪৩.৯২। আর নাঈম শেখ রান তুলেছেন ৩৫৯, স্ট্রাইক রেট ১১৫.৪৩।

বিপিএলে তামিমের ব্যাটিং মনোভাব নিয়ে কোনো অভিযোগ ছিল না তার কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের। দলের প্রয়োজনে ধীরগতিতে ব্যাটিং করেছেন বলেই জানিয়েছিলেন সালাউদ্দীন। ঢাকার মিডল অর্ডার শক্তিশালী না হওয়ায় উইকেটে দীর্ঘক্ষণ ব্যাটিং করেছেন।

ঢাকায় তামিমের ভূমিকা ছিল এক রকম। কিন্তু জাতীয় দলে তামিমের ভূমিকা কেমন হবে? তামিম কি আগ্রাসন দেখাবেন নাকি ধীরগতির ব্যাটিংয়ে মনোযোগী হবেন? আজ জানতে চাওয়া হয়েছিল কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর কাছে।

ডমিঙ্গোর অধীনে বাংলাদেশ খেলেছে তিনটি সিরিজ। তিনটির একটিতেও ছিলেন না তামিম। ইনজুরির কারণে শুরুতে খেলা হয়নি আফগানিস্তান সিরিজ ও ত্রিদেশীয় সিরিজে। এরপর পারিবারিক কারণে তামিম মিস করেন ভারত সফর। পাকিস্তান সফর দিয়ে তামিমের সঙ্গে কাজ করা শুরু হতে যাচ্ছে ডমিঙ্গোর।

‘এটা তামিমের সঙ্গে আমার প্রথম কাজ হতে যাচ্ছে। তাকে আমার আরেকটু গভীরভাবে জানতে হবে। আমি জানি বিপিএলে তামিমের ভূমিকা ছিল এক রকম এবং জাতীয় দলে তার ভূমিকা কী রকম হবে, সেটা নিয়ে আলোচনা হবে। এখন পর্যন্ত আমাদের কোনো আলোচনা হয়নি। আমি নিজেও এটা নিয়ে চিন্তা করবো’- বলেন ডমিঙ্গো।

আলোচনা না হলেও তামিমের ভূমিকা কেমন হতে পারে, সেই আঁচ দিয়েছেন ডমিঙ্গো, `তামিমের ভূমিকা নির্ভর করবে তার উদ্বোধনী জুটির সঙ্গীর ওপর। আগ্রাসী কোনো ব্যাটসম্যানের সঙ্গে ইনিংস শুরু করলে তামিমকে হয়তো এই ভূমিকা (বিপিএলের মতো) পালন করতে হবে। অনভিজ্ঞ কেউ ওর সঙ্গী হলে হতো তামিমকেই হতো অগ্রনী ভূমিকা নিতে হবে। এই আলোচনাগুলো করতে হবে।’

তবে ধীরগতির ব্যাটিংয়ে আগের তামিম কি হারিয়ে যাচ্ছেন না? সেই প্রশ্ন উঠছে সবচেয়ে বেশি। বিশ্বকাপে তার মন্থর ব্যাটিংয়ে ভুগেছে দল! ব্যাটিং মনোভাব ছিল বাজে! ৮ ম্যাচে দেশসেরা ওপেনারের রান ২৩৫।

এ বছরই আছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এর আগেই তামিমের ভূমিকা এবং তার জুটি স্থায়ী করা সময়ের দাবি। নয়তো বড় মঞ্চে আবার ভুগবে লাল-সবুজের জার্সিধারীরা।