তিনটি মুরগি চুরি, জরিমানা দেড় লাখ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৫১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২১ | আপডেট: ৮:৫১:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২১

শরীয়তপুরে তিনটি মুরগি চুরির অভিযোগে চার ব্যক্তিকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মুরগি তিনটির দাম বর্তমানে ৪০০ টাকা। ৩১ মার্চ (বুধবার) রাতে সদর উপজেলার রুদ্রকর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব সোনামুখী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় ৪ এপ্রিল ও ১০ এপ্রিল দুটি সালিশ বৈঠক হয়েছে। শেষ বৈঠকে এক চোরকে থাপ্পড়ও মারেন স্থানীয় গ্রাম্য মাতব্বর মতিন চৌকিদার।

অভিযুক্ত চারজন হলেন- ওই গ্রামের ইউনুছ তালুকদারের ছেলে শাহাদাত তালুকদার, সোবাহান তালুকদারের ছেলে টিটু তালুকদার, এলাহী তালুকদারের ছেলে বাবু তালুকদার, আজিজ রাড়ির ছেলে জহিরুল রাড়ি।

স্থানীয়রা জানায়, মান্নান চৌকিদার, সেকেন্দার রাড়ি, ফরহাদ ঢালী, বোরহান মোল্লা, বোরহান সরদার, ইলিয়াস তালুকদার, গনি তালুকদার, হযরত আলী তালুকদার, আবদুল আলী মাদবর, খালেক তালুকদার, ফরিদ আহম্মদ, মতিন চৌকিদারসহ বেশ কয়েকজন গ্রাম্য মাতব্বর এ বিচারকাজ পরিচালনা করেন। সালিশে অন্তত ৪০০-৫০০ জন লোক উপস্থিত ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ৩১ মার্চ রাতে পূর্ব সোনামুখী গ্রামের জিল্লুর রহমান তালুকদারের ছেলে রাহাত তালুকদারের খামার থেকে তিনটি ব্রয়লার মুরগি চুরি হয়। একই গ্রামের শাহাদাত, টিটু, বাবু ও জহিরুল মুরগিগুলো চুরি করেছে— এমন অভিযোগে ৪ এপ্রিল রাহাতের বাড়িতে সালিশ বৈঠক বসে।

গ্রাম্য মাতব্বররা ওই চারজনকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করে। যা ১০ এপ্রিলের মধ্যে মাতব্বরদের হাতে জমা দিতে বলা হয়। কিন্তু পুরো টাকা জমা না দেয়ার পুনরায় ১০ এপ্রিল বিকেলে ১১০ নম্বর সোনামুখী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আবারো সালিশ বৈঠক বসে। বৈঠকে অভিযুক্ত শাহাদাতকে চড় মারেন মাতব্বর মতিন চৌকিদার।

অভিযুক্ত টিটু তালুকদার বলেন, বিকেলে আমরা ক্রিকেট খেলি। রাতে শাহাদাত, বাবু ও জহিরুল তিনটি মুরগি ওই খামার থেকে আনে। পরে তাদের সঙ্গে আমি যুক্ত হই।

খামার মালিক রাহাত তালুকদার বলেন, যেহেতু মীমাংসা হয়েছে- এখন এ ব্যাপারে আর কিছু বলব না।

সালিশে উপস্থিত মাতব্বর সেকেন্দার রাড়ি বলেন, রাতে মুরগি চুরির পর যেখানে রাখে- পরদিন সকালে সেখান থেকে আনতে গিয়ে ওই চার যুবক ধরা পড়ে যায়। যারা চুরি করছে তারা বলে তিনটি মুরগি, খামার মালিক বলে ১৯৭টি। আমরা সঠিক সংখ্যা পাইনি। অভিযুক্তদের মধ্যে তিনজন আগেও চুরি করেছে। এবার মুরগি চুরির ঘটনায় আরেকজন যুক্ত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, চুরি করলে তো ক্ষতিপূরণ দিতেই হয়। এ কারণে সালিশে জুড়ি বোর্ডের মাধ্যমে তাদের জরিমানা করা হয়েছে। জুরি বোর্ডে সভাপতিত্ব করেছেন খালেক তালুকদার।

রুদ্রকর ইউনিয়ন পরিষদের ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার পারুল আক্তার বলেন, আমরা ওই চারজনকে জিজ্ঞেস করেছি- ওরা বলেছে পিকনিক করবে বলে তিনটি মুরগি চুরি করেছে। স্থানীয় মাতব্বররা সালিশ বসিয়ে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছে।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন শরীয়তপুর জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান বলেন, গরু চুরি হোক কিংবা মুরগি- গ্রাম্য মাতব্বরদের সালিশ বসিয়ে এ ধরনের বিচার করার আইনি বিধান নেই। ঘটনা সত্য হলে পুলিশ আছে, গ্রাম আদালত আছে- সেখানে বিচার হতে পারে। এ সালিশ বৈঠক মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

শরীয়তপুরের সদরের পালং মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আক্তার হোসেন বলেন, আমি বিষয়টা জানতাম না। এ ধরনের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান সর্বোচ্চ চার হাজার ৪৯৯ টাকা জরিমানা করতে পারেন। স্থানীয় মাতব্বরদের এ ধরনের বিচার করার আইনি বিধান নেই। কেউ অভিযোগ করলে আমি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।