‘তিন ভিসির আমল দেখলাম তবুও অনার্স শেষ হলো না!’

বেরোবি'র সিএসই বিভাগে সেশনজট

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:৪৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০২০ | আপডেট: ২:৪৯:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০২০

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এণ্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগে ছয় মাসের সেমিস্টার শেষ করতে লাগছে এক বছর। এতে চার বছরের অনার্স কোর্স শেষ করতে শিক্ষার্থীদের লেগে যাচ্ছে প্রায় আট বছর।

অনার্স শেষ করতেই চাকরির বয়স শেষ হয়ে যাওয়ায় হতাশায় ভুগছেন তারা। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কিংবা বিভাগের শিক্ষকদের কোনো পদক্ষেপ নেই বলে অভিযোগ করছেন দীর্ঘ সেশনজটে থাকা শিক্ষার্থীরা।

তারা অভিযোগ করে বলেন, এই দীর্ঘ সেশনজটের মূলে রয়েছে বিভাগটির শিক্ষকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দল আর ব্যক্তিস্বার্থ। নিজের প্রমোশন আটকে থাকার কারণে পরীক্ষার এক বছর পরেও নিজের আয়ত্বে থাকা কোর্সের খাতা এবং নম্বর জমা দেননি বিভাগের শিক্ষক।

এদিকে, কেন এই দীর্ঘসূত্রিতা এ নিয়ে শিক্ষকদের সাথে বিভিন্ন সময়ে শিক্ষার্থীরা কথা বললে নানাভাবে হুমকি এবং হয়রানির মুখে পড়েন তারা। বিভাগীয় প্রধানের সাথে বিভাগের অন্যান্য শিক্ষকদের সামঞ্জস্যতা নেই বলেও অভিযোগ তুলেছেন শিক্ষার্থীরা।

তারা বলেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে অধিকাংশ সময় একজনই বিভাগীয় প্রধান এবং তিনি অন্য বিভাগের হওয়ায় বিভাগ সম্পর্কে তেমন ভূমিকা রাখতে পারেননি। এমনকি বিভাগের অন্য শিক্ষকরাও এতে ক্ষুব্ধ হয়ে দায়সারাভাবে বিভাগ কাজ করে যাচ্ছেন।

এ নিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক বলেন, শিক্ষার্থীরা যা অভিযোগ করেছে তা সব সত্য। বিশ্ববিদ্যালয়ের নানান সংকটের পাশাপাশি বিভাগেও অভ্যন্তরীণ অনেক সংকট রয়েছে। তার মধ্যে শিক্ষক সংকটও অন্যতম।

তিনি বলেন, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ হলেও বিভাগীয় প্রধান পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের। তিনি অন্য বিভাগের হওয়ায় এই বিভাগ সম্পর্কিত প্রয়োজনীয়তার কথা প্রকাশ করতে পারেননি।

ঠিকভাবে প্ল্যানিং কমিটি করা হয়নি। বিভাগের প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত তিনি নিতে পারেন না। বিভাগে অন্য কোনো অধ্যাপক না থাকায় নিয়মানুযায়ী একজন অধ্যাপকই বার বার বিভাগীয় প্রধান হচ্ছেন।

তিনি আরো বলেন, একাডেমিক কাজে শিক্ষকদের সমন্বয়হীনতা এবং দীর্ঘদিন বিভাগের একাডেমিক মিটিং না হওয়ায় পরিকল্পনামাফিক কোনো কাজ হচ্ছে না। এদিকে বায়ান্ন লক্ষ টাকার ল্যাব ইক্যুইপমেন্ট দীর্ঘদিন স্টোরে পড়ে থাকলেও ল্যাব সেটাপ দিচ্ছে না। প্রয়োজনীয় ল্যাব না থাকাও এই সেশনজটের একটি কারণ।

বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে কখনো কোনো ধরনের কনফারেন্স বা একাডেমিক মিটিং হয়নি। এছাড়াও করোনাকালে নির্দিষ্ট কোনো দিক নির্দেশনাও নেই যেখান থেকে শিক্ষার্থীদের অসুবিধার কথা বিবেচনা করে অনলাইনে বা অন্য কোনো মাধ্যমে সেশনজট নিরসনের ব্যবস্থা করা হবে।

২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ২০০৯ সালে চালু হওয়া কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ১০ জন শিক্ষক এর মধ্যে (২ জন শিক্ষা ছুটিতে) ও পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ থাকলেও চার বছরের অনার্স সম্পন্ন করতেই লেগে যাচ্ছে আট বছর।

যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য বিভাগে ধীরে ধীরে সেশনজটমুক্ত হচ্ছে সেখানে এই বিভাগে দিন দিন লাগামহীনভাবে বাড়ছে সেশনজটের মাত্রা। বিভাগটির এ পর্যন্ত ১২টি ব্যাচের মধ্যে মোট ৫টি ব্যাচ বের হয়েছে এবং চলমান ব্যাচ সংখ্যা ৭টি।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের যে শিক্ষার্থীরা এই বিভাগে ভর্তি হয়েছেন তারা তিন ভিসির আমল দেখলেও অনার্স সম্পন্ন করতে পারেনি এখন পর্যন্ত। বিশ্বদ্যিালয়ের ৬ষ্ঠ ব্যাচের এই শিক্ষার্থীরা এখনো অষ্টম সেমিস্টারে।

অথচ নিয়মানুযায়ী এতোদিনে মাস্টার্স শেষ হওয়ার কথা ছিল। একই দশা এই বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের। ৬ বছরে এসেও ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের ল্যাব এখনো শেষ করতে পারেনি তারা। যেখানে মাস্টার্স শেষ হওয়ার কথা ছিল।

২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮ম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ৫ম সেমিস্টারে। এদের মাস্টার্স চলার কথা থাকলেও এখনো অনার্স শেষ করতে পারেননি। ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের ৮ম সেমিস্টার চলার কথা থাকলেও তারা এখনো ৪র্থ সেমিস্টারে।

২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া দশম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা ৩য় সেমিস্টারে যদিও এদের চলার কথা ছিলো ৬ষ্ঠ সেমিস্টার। ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের এগারো তম ব্যাচ চতুর্থ সেমিস্টারে থাকার কথা থাকলেও তারা এখনো ২য় সেমিস্টারে।

হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, তিন ভিসির আমল দেখলাম তবুও অনার্স শেষ হয়নি। তিন বছর সেশনজটে থাকার পরেও অনার্স শেষ না হওয়ার ফলে কোনো ধরনের চাকরির পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারছেন না তারা।

বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দপ্তর জানায়, এক বছরে দুটি সেমিস্টার (জানুয়ারি-জুন এবং জুলাই-ডিসেম্বর) মিলিয়ে একটি শিক্ষাবর্ষ শেষ হবে। এক সেমিস্টারের মেয়াদ ছয়মাস হওয়ায় সাড়ে চারমাসের মধ্যেই সমস্ত ক্লাস, অ্যাসাইনমেন্ট, মিডটার্ম এবং প্রেজেন্টেশন শেষ করে পরবর্তী ছয় সপ্তাহের মধ্যেই ফলাফল প্রকাশ করবেন কিন্তু বেশিরভাগ বিভাগের শিক্ষকেরা এই নিয়মের তোয়াক্কা করেন না।

এ নিয়ে বিভাগটির সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. আবু কালাম মো. ফরিদ উল ইসলাম বলেন, বর্তমানে বিভাগটি বিভাগীয় প্রধান শূন্য। উপাচার্য নিজেই বিভাগীয় প্রধান হয়ে আছেন। আমি বিভাগীয় প্রধান থাকাকালীন বিভাগের সেশনজট নিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম এর মধ্যে করোনার প্রভাব তা হতে দেয়নি।

পূর্বে থেকে কেন এতো সেশনজট এবিষয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিস্থিতিকেই দায়ী করেন। তবে শিক্ষকদের মধ্যে অন্তঃকোন্দলের বিষয়টিকে তিনি উপেক্ষা করেন। নতুন বিভাগীয় প্রধান বা বিভাগের একাডেমিক কোনো সিদ্ধান্ত কেমনে হচ্ছে সে বিষয়ে তিনি বলেন, আমি বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব শেষ করেছি এখন এ ব্যাপারে আর কোন কিছুই ভাবতে চাই না।

এ বিষয়ে জানতে বিভাগীয় প্রধান (দায়িত্বে) উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহকে বারবার ফোন দিলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।