দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্য ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছে ইউএনডিপি ও ইউকে-এইড

এস. এম. আকাশ এস. এম. আকাশ

ব্যুরো চিফ,চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ৮:০৪ অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০ | আপডেট: ৮:০৪:অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

ইউএনডিপি ও ইউকে-এইড এর সহায়তায় পরিচালিত হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে বিভিন্ন ধরনের উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

সম্প্রতি সারা বিশ্বে কোভিড-১৯ একটি মহামারী রুপ ধারণ করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশেও তা চরম আকার ধারন করেছে। সবচেয়ে ঝুঁকিতে আছে আমাদের দেশের দরিদ্র মানুষজন বিশেষকরে নগরে ঘনবসতিপূণ এলাকায় বসবাসরত হতদরিদ্র মানুষজন। কোভিড-১৯ মোকাবেলায় প্রয়োজন সচেতনতা বৃদ্ধি ও সচেতন হওয়া। সচেতনতা বৃদ্ধি ও প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহে এই জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ৩৫ নং ওয়র্ড সিলভার প্যালেস কমিউনিটি হলে কোভিড-১৯ দূর্যোগকালীন জরুরী খাদ্য সহায়তার জন্য নগদ অর্থ বিতরণ করেন সিটি মেয়র জনাব আ. জ. ম. নাছির উদ্দীন। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় পরিচালিত সিডিসি সমুহ হতে প্রাথমিক দলের নির্বাচিত ২০ হাজার ১ শত ৪৮ জনকে নগদ ১ হাজার ৫শত টাকা করে মোট ৩ কোটি ২ লক্ষ্য টাকা দেয়া হচ্ছে।

এই নগদ অর্থ সহায়তা প্রকল্পের উপকারভোগীদের নিজস্ব মোবাইল একাউন্টে পৌছে দেয়া হয়। এ সময় সিটি মেয়র উপকারভোগীদের খোজখবর নেন এবং বলেন যে, হতদরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়িত কার্যক্রম সমূহ কোভিড-১৯ মোকাবেলায় কার্যকরী ভুমিকা রাখছে। তিনি সবাইকে ধৈর্যশীলতার সহিত এই দূর্যোগ মোকাবেলার আহ্বান জানান। তিনি সবাইকে সচেতন হওয়া ও সঠিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করার আহ্বান জানান। ইতিমধ্যে এই কার্যক্রমের আওতায় এই জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প ৮৪ হাজার পরিবারকে ৫ টি করে প্রায় ৪ লক্ষ ২৩ হাজার টি সাবান ঘরে ঘরে পৌছে দিচ্ছে। সেই সাথে সাথে সঠিক নিয়মে হাত ধোয়ার পদ্ধতিও বর্ণনা করা হচ্ছে।

কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় মহলস্নার লোকজনের সুরক্ষার জন্য ৩৬৪ টি সিডিসিতে ৩৮৪ টি হাত ধোয়ার পয়েন্ট স্থাপন করা হয়েছে এবং কয়েকটি এতিমখানায়ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে প্রায় ৪৫ হাজার সাবান দেয়া হয়েছে। এছাড়া দরিদ্র এলাকার মানুষজনকে সচেতন করার জন্য লিফলেট, পোষ্টার, ষ্টিকার, ক্যাবল নেটওয়ার্কে বার্তা প্রদান ও মাইকিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প গর্ভবতী মায়েদের জন্য ১ হাজার দিনের জরুরী পুষ্টি খাদ্য সহায়তা দিয়ে আসছে। যেখানে এই নগরের ১ হাজার ৬ শত ৭৪ জন গর্ভবতী মা মাসিক ভিত্তিতে জরুরী পুষ্টি খাদ্য সহায়তা পেয়ে আসছে।

তিনি উল্লেখ করেন যে, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার বিভাগ কর্তৃক বাস্তবায়িত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ও ইউকে এইড সহায়তায় ইউএনডিপির এই জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প সব সময়েই নগরের ঝুঁকিপূর্ণ মানুষদের পাশে থেকে কাজ করছে এবং করবে। তিনি আরো বলেন যে এই প্রকল্পের আওতায় খুব শীগ্রই আরো দরিদ্র ও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে জরুরী খাদ্য সহায়তার জন্য নগদ অর্থ সহায়তা দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। এছাড়াও সম্প্রতি সময়ে ইউএনডিপি ও অষ্ট্রেলিয়ান এইড এর সহায়তায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম নিরবিচ্ছিন্ন রাখার লক্ষে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের মাঝে প্রায় সাতশত পিপিইসহ আনুসাঙ্গিক নিরাপত্তা সরঞ্জমাদি দিয়ে সহায়তা করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সামসুদ্দোহা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের টাউন ম্যানেজার (ভারপ্রাপ্ত), প্রকৌঃ মোঃ সাইফুর রহমান চৌধুরী ও মেয়র মহোদয়ের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, টাউন ফেডারেশন এর চেয়ারপার্সন কোহিনুর আক্তার সহ এলআইইউপিসি প্রকল্পের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সভাপতিত্ব করেন হাজী নুরুল হক, কাউন্সিলর, ৩৫ নং ওয়ার্ড, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। এসময় একজন উপকারভোগী নগদ অর্থ পেয়ে বলেন “এই প্রকল্প থেকে আমরা সবসময় বিভিন্ন সহযোগিতা পেয়ে আসছি। এখন দেশের এই দূর্যোগপূর্ণ অবস্থায় নগদ টাকা পেয়ে আমাদের কষ্ট কিছুটা হলেও মিটাতে পারবো, আমরা অনেক কৃতজ্ঞ।”