দেশেই যখন বিশ্বমানের স্বাস্থ্যসেবা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:৪২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১ | আপডেট: ৪:৪২:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২১

স্বাস্থ্য অপেক্ষা উত্তম কোনো সম্পদ নেই। সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে এবং সুস্থ্যভাবে বেঁচে থাকতে আমরা কতো কিই না করি! জীবনের সকল অর্জনই মূল্যহীন যদি না স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন হই এবং সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করি।

পৃথিবীর বুকে উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দেশ, বাংলাদেশ। উন্নয়নশীল দেশের সকম বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান থাকলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে বরাবরই পিছিয়ে দেশ। যার মধ্যে স্বাস্থ্যখাত বা স্বাস্থ্যসেবা একটি। তবে দেশের স্বাস্থ্যখাত সম্প্রতি উন্নতির পথে। বর্তমানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল উন্নতমানের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। আর সেই প্রচেষ্টায় প্রথম সারির হাসপাতালগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি নাম এভারকেয়ার হসপিটাল।

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এভারকেয়ার গ্রুপ-এর একটি অন্যতম সংযোজন এভারকেয়ার হসপিটাল। সর্বোচ্চ মানের সেবা নিশ্চিত এর পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখছে হাসপাতালটি। এরই সাথে উন্নয়নশীল দেশ হয়েও স্বাস্থ্যখাতে পিছিয়ে থাকার ব্যর্থতা পাল্টে নির্ভরযোগ্য করে তুলতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এই প্রতিষ্ঠানটি।

এভারকেয়ার গ্রুপ, সম্প্রতি দেশের বন্দরনগরী চট্টগ্রামে তাদের নতুন হাসপাতাল উদ্বোধন করতে যাচ্ছে। চট্টগ্রামের রোগীদের সর্বোচ্চ মানের সেবা নিশ্চিত করতে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসমৃদ্ধ মেডিকেল সেবা এবং ৫ শতাধিকেরও বেশি মেডিকেল প্রোফেশনালসদের সাথে নিয়ে হাজির হয়েছে এভারকেয়ার হাসপাতাল, চট্টগ্রাম। ৪৭০ শয্যাবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক মানের এই হাসপাতালটি চট্টগ্রামের সর্বপ্রথম মাল্টি ডিসিপ্লিনারী সুপার-স্পেশিয়ালিটি টারশিয়ারি কেয়ার হাসপাতাল, যেখানে রয়েছে ২৭ টি বিশেষ ও উপ-বিশেষ বিভাগ যা পুরো অঞ্চলের প্রয়োজনীয় ধারণক্ষমতার শূন্যস্থান পূরণে সক্ষম।

এখানে আরও থাকছে- ২৪/৭ জরুরী বিভাগ এবং সর্বাধুনিক আইসিইউ সেবা। ৪ লক্ষ ৯২ হাজার বর্গফুটের সুবিশাল আয়তনের জায়গার উপর মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে হাসপাতালটি। এভারকেয়ার গ্রুপ তাদের ঢাকায় অবস্থিত দেশের একমাত্র জেসিআই কর্তৃক স্বীকৃত হাসপাতাল থেকেও বৃহৎ পরিসরে নির্মাণ করেছে বন্দরনগরীর হাটহাজারী উপজেলার, অনন্যা আবাসিক এলাকায় অবস্থিত এই হাসপাতালটি।

অতীতে দেশের অনুন্নত চিকিৎসাসেবার কারণে সুচিকিৎসার সেরা গন্তব্য হিসেবে দেশের মানুষ বিদেশী হাসপাতালগুলোকেই প্রাধান্য দিয়ে এসেছে। ৫ টি মৌলিক চাহিদার একটি চিকিৎসা, তা সত্ত্বেও দেশের স্বাস্থ্যখাত পিছিয়ে থাকাটি সত্যিই অপ্রত্যাশিত। তবে বর্তমানে এভারকেয়ার হাসপাতাল দেশেই বিশ্বমানের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের আস্থা প্রদান করায়, অদূর ভবিষ্যতে মানসম্মত চিকিৎসা লাভের লক্ষ্যে, বাংলাদেশের মানুষের বিদেশে পাড়ি জমানোর প্রবণতা কমে আসবে বলে আশা করা যায়। এর ফলে যেমন বিদেশ যাওয়ার ঝামেলা কমবে ও খরচ কমবে তেমনই দেশের অর্থ দেশে থাকবে যা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও লক্ষ্যনীয় প্রভাব ফেলবে।

বৃহৎ পরিসরে নির্মিত এভারকেয়ার হাসপাতাল, স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখার পাশাপাশি কর্মসংস্থানের উৎস হিসেবেও এক অনন্য দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে, মহামারী চলাকালে যখন উপার্জনের উৎসগুলো একের পর এক হ্রাস পাচ্ছে, সেই মূহুর্তে এভারকেয়ার হাসপাতাল অসংখ্য যোগ্য প্রার্থীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিয়ে দেশের অস্থিতিশীল পরিস্থিতিকে সামাল দিতে উল্ল্যেখযোগ্য অবদান রেখেছে।

সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে দেশের মধ্যেই বিশ্বমানের চিকিৎসাসেবা প্রদান করে, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং কর্মসংস্থানের যোগান দিয়ে অসংখ্য মানুষের জীবিকা নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে যুগান্তকারী ভূমিকা রাখতে সক্ষম হয়েছে এভারকেয়ার হাসপাতাল চট্টগ্রাম এবং এভারকেয়ার গ্রুপ।