দ্বিতীয় বিয়ে করায় সন্ত্রাসী নিয়ে স্বামীকে খুন করেছে প্রথম স্ত্রী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:০২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮ | আপডেট: ৫:০২:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮
ছবি : প্রতীকী

দ্বিতীয় বিয়ে করায় ক্ষিপ্ত হয়ে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে ব্যবসায়ী স্বামীকে খুন করিয়েছে প্রথম স্ত্রী খালেদা বেগম। আদালতের কাছে স্বামী হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক এমনই জবানবন্দি দিয়েছেন বলে সোমবার দুপুরে জানিয়েছেন থানার ওসি (তদন্ত) মঈন উদ্দিন। ঘটনাটি জেলার হিজলা উপজেলার বড়জালিয়া ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের।

ওসি জানান, শ্রীপুর গ্রামের বাসিন্দা ও ঢাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী শহিদ মোল্লার (৪০) স্ত্রী খালেদা বেগমের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী রবিবার দিবাগত মধ্যরাতে পাশ্ববর্তী মাসকাটা গ্রামের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী আল-আমিন ওরফে মুন্নাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে ওই গ্রামের মৃত মানিক কাজীর পুত্র।

সোমবার দুপুরে আল-আমিনকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ওসি আরও জানান, স্বামী খুনের ঘটনায় খালেদা বেগম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। এ ঘটনায় খালেদা বেগম ও আল-আমিন ছাড়াও আরও বেশ কয়েকজন জড়িত রয়েছে। তাদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে বলেও ওসি উল্লেখ করেন।

নিহতের স্ত্রী খালেদা বেগমের উদ্বৃতি দিয়ে ওসি জানান, শহিদ মোল্লা ঢাকায় গার্মেন্টস সেক্টরের ক্ষুদ্র ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলেন। সম্প্রতি সময়ে বাড়িতে থাকা প্রথম স্ত্রী খালেদা বেগম যখন জানতে পারেন তার স্বামী শহিদ ঢাকায় দ্বিতীয় বিয়ে করেছে, তখন থেকেই তিনি স্বামীর প্রতি ক্ষিপ্ত ছিলেন।

উল্লেখ্য, কোরবানির ঈদে বাড়িতে আসেন শহিদ মোল্লা। শহিদ মোল্লা ও তার স্ত্রী খালেদা বেগম গত ২৮ আগস্ট রাতের খাবার শেষে ঘুমিয়ে পরেন। পরবর্তীতে খালেদা বেগম পরিকল্পিতভাবে তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে বসত ঘরে সিঁদ কেটে নাটকীয়ভাবে চুরির ঘটনা সাজিয়ে শহিদ মোল্লাকে কুপিয়ে হত্যা করে। খবর পেয়ে ২৯ আগস্ট সকালে থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে।

এ ঘটনায় নিহতের বড়ভাই হারুন-অর রশিদ অজ্ঞাতনামা আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। শহিদ মোল্লা খুন হওয়ার পর তার স্ত্রী খালেদা বেগমের বক্তব্যে থানা পুলিশের সন্দেহ হয়। পরবর্তীতে দীর্ঘ তদন্তে পুলিশ নিহতের স্ত্রী খালেদা বেগমের জড়িত থাকার বিষয়টি স্পষ্ট হওয়ার পর তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার মূলরহস্য বেরিয়ে যায়।