ধর্ষকের শাস্তি মূত্যুদন্ড একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ

মোঃ হায়দার আলী মোঃ হায়দার আলী

গোদাগাড়ী উপজেলা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০ | আপডেট: ৪:২০:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০

মোঃ হায়দার আলীঃ কৃষকের আমন ধান চাষ করে ধান উৎপাদন করতে সার, বীজ, কীটনাশক, নিড়ানী, কৃষি শ্রমিক ইত্যাদিতে কি পরিমান ব্যয় এবং বর্তমানে ধানের বাজার মূল্যেতে কি কৃষক লাভবান হবেন না ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ধান চাষে অগ্রহ হারাবেন না ধান চাষে আগ্রহ ফিরে পাবেন এ সম্পর্কে লিখার জন্য, তথ্য উপাত্ত নিয়ে ল্যাপটপ ওপেন করলাম এমন সময় রাজশাহীর একটি সনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক আমার। বন্ধু, কয়েকজন শিক্ষক, কয়েকজন ছাত্র মোবাইলে জানালেন, দিন দিন ধর্ষনের ঘটনা বেড়েই চলেছে।

এ ব্যপারে কিছু লিখেন স্যার। তাই লিখার থিম পরিবর্তন করে ধর্ষন সম্পর্কে কিছু তথ্য উপাত্ত নিয়ে ল্যাপটপে লিখা শুরু করলাম। মানুষের দ্বারা সংগঠিত জঘন্য অপরাধগুলোর মধ্যে জঘন্যতম হলো ধর্ষণ। ধর্ষণের শাস্তি সব সমাজ ব্যবস্থাতেই রয়েছে। তবে স্থান, কাল, পাত্রভেদে তাতে তারতম্য দেখা যায়। ধর্ষণকে এক ধরণের সামাজিক ব্যধিও বলা হয়ে থাকে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সময়ে এই অপরাধ সংগঠিত হতে দেখা যায়। তবে সময় ভেদে মাত্রার পরিমাণ কমবেশি হয়ে থাকে। বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসোর সাথে পাল্লা দিয়ে ধষর্ণের ঘটনা বেড়েই চলেছে। দেশে আলেম সমাজ, বিভিন্ন রানৈতিক দল সামাজিক সংগঠন গুলি প্রতিবাদ সমাবেশ, লংমাচসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন। পুলিশ প্রশাসন দেশের প্রতিটি থানায় বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন। দেশে ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যূ দন্ড করা হয়েছে। এ জন্য প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রশাংসা কুড়াচ্ছেন। ধন্যবাদও পাচ্ছেন।

এদিকে দেশে একের পর এক ধর্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় ছাত্র, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন বিক্ষোভ-সমাবেশ করছে। এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ওই নির্দেশনার খবর আসে। ধর্ষণবিরোধী সর্বশেষ দফার এই আন্দোলন দানা বাঁধে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে একজন গৃহবধুকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনা সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর।ছাত্র সংগঠন-সহ বিভিন্ন সংগঠন ধর্ষণের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নেমেছে এবং তা অব্যাহত রয়েছে। এসব সমাবেশে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডের বিধান প্রচলন করার দাবি তোলা হয়। প্রসঙ্গত বাংলাদেশের নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের পর থেকে গত কয়েকদিন ধরে ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার দাবি উঠেছে প্রতিবাদ সমাবেশগুলো থেকে।

ধর্ষণ কি প্রথমেই তা জানা যাক-

কোনো ব্যক্তির সাথে তার অনুমতি ব্যতীত কিংবা জোরপূর্বক যৌন সম্পর্কে যাওয়াকেই সাধারণভাবে ধর্ষণ বলে।
একজন পুরুষ যদি কোন মেয়ের অনুমতি ছাড়া বা সেই মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে অথবা ভবিষ্যতে স্ত্রী রূপে গ্রহণ না করলেও কোন মেয়েকে মিথ্যে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সম্মতি আদায় করে তাহলেও তাই ধর্ষণের মত অপরাধ। এছাড়া কোন মেয়ের বয়স চৌদ্দ বছরের নিচে হলে তার অনুমতি না নিয়ে যৌন সম্পর্কে গেলে একজন পুরুষকে বাংলাদেশী দন্ডবিধির ১৮৬০ (১৮৬০ সালের আইন XLV) ৩৭৫ ধারা অনুসারে- ‘ধর্ষণকারী ’ হিসেবে গণ্য করা হবে ।

বাংলাদেশ সংবিধানে ধর্ষণের সংজ্ঞা

যদি কোন পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ষোল বৎসরের অধিক বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতি ছাড়া বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তার সম্মতি আদায় করে, অথবা ষোল বৎসরের কম বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করেছেন বলে গণ্য হবেন।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, এর ৯ ধারা মতে সাজাসমুহঃ

৯(১) যদি কোন পুরুষ কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।

(২) যদি কোন ব্যক্তি কর্তৃক ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তা হলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।

(৩) যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন এবং ধর্ষণের ফলে উক্ত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে বা তিনি আহত হন, তা হলে ঐ দলের প্রত্যেক ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।

(৪) যদি কোন ব্যক্তি কোন নারী বা শিশুকে-
(ক) ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহলে উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন;
(খ) ধর্ষণের চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বত্সর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
(৫) যদি পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন সময়ে কোন নারী ধর্ষিতা হন, তা হলে যাহাদের হেফাজতে থাকাকালীন উক্তরূপ ধর্ষণ সংঘটিত হয়েছে, সেই ব্যক্তি বা ব্যক্তিগণ ধর্ষিতা নারীর হেফাজতের জন্য সরাসরিভাবে দায়ী ছিলেন, তিনি বা তারা প্রত্যেকে, ভিন্নরূপ প্রমাণিত না হলে, হেফাজতের ব্যর্থতার জন্য, অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন

বর্তমানে দেশে ধর্ষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়াতে প্রতিটি মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানো এখন সময়ের দাবি। দেশের প্রতিটা মানুষেরই এর শাস্তি সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। আমাদের দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইন ২০০৩ সেকশন ৯ অনুসারে ধর্ষণের শাস্তি হলো, ধর্ষণের কারণে বা ধর্ষণের পর ভিক্টিমের কোনো ক্ষতি হলে বা ভিক্টিম র্ধষণের পর মারা গেলে ধর্ষণকারীকে মৃত্যুদন্ড দিতে হবে এবং এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হবে।

কোন নারী বা শিশুকে একাধিক ব্যক্তি মিলে ধর্ষণ করলে এবং সেই মহিলা বা শিশু মারা গেলে বা আহত হলে প্রত্যেক ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড এবং এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হবে।
যেকোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণের পর মৃত্যু বা আঘাত করার চেষ্টা করলে, তাকে কঠোর কারাদণ্ড এবং জরিমানা করা হবে। তবে ধর্ষণের বর্ণনা যথাযথভাবে দিয়ে দোষ স্বীকার করলে দশ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হবে, যা পরবর্তীতে কমে ৫ বছর পর্যন্ত হতে পারে কিন্তুএর কম মেয়াদ নয় এবং জরিমানাও হতে পারে।

কোনো নারী পুলিশ হেফাজতে ধর্ষিত হলে হেফাজতের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যকেও নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থতার জন্য শাস্তি দেওয়া হবে। সেইসাথে ধর্ষণের বর্ণনা যথাযথভাবে দিয়ে দোষ স্বীকার করলে দশ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হবে, যা কমে ৫ বছর পর্যন্ত হতে পারে এবং জরিমানাও হতে পারে।

আমাদের সমাজে সাধারণত আগে দেখা যেতো যে ধর্ষিতাকে একঘরে করে রাখা হতো বা সমাজে তাকে বাঁকা চোখে দেখা হতো। সেইসাথে তার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দেয়া হতো বা যা এখনো হয়। তবে পরিস্থিতি কিন্তু পুরোটা না পাল্টালেও এখন অনেকটাই পাল্টেছে। মানুষ এখন অনেক বেশি সোচ্চার, এখন আর ঘরের কোণে লুকিয়ে না থেকে এই ধরণের অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোরভাবে প্রতিবাদ করে মানুষ পাশাপাশি নেয় আইনের আশ্রয়। এ ব্যাপারে আমাদের দেশর আইন যেমন কঠিন তেমন আইনের প্রয়োগও হয় বেশ দ্রুত।

বাংলাদেশে ধর্ষণ একটি সামাজিক ব্যাধি। একজন নারী বা শিশু ধর্ষিতা হবার পর আদালতে বিচার প্রার্থনা করলে বহুলাংশে নাজেহাল হয়ে থাকে। ধর্ষণের মত জঘন্য কাজ সহজে ঘটানো যায় কিন্তু এটা প্রমাণ করা খুবই কঠিন বিষয়। বিচারকালে ধর্ষিতা তার যৌন সম্পর্কের অতীত ইতিহাস ব্যাখ্যা করতে সংকোচবোধ করে। কিন্তু জেরা তাকে নিস্তার দেয়না।
সংবিধানের যে ধারায় ধর্ষণ নিয়ে বলা হয়েছে

বাংলাদেশের সংবিধানে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, এর ৯ ধারায় ধর্ষণ এবং ধর্ষণ জনিত কারণে মৃত্যু ঘটানো ইত্যাদির সাজা সম্পর্কে আলচনা করা হয়েছে। অত্র ধারায় একজন অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডর বিধান রাখা হয়েছে।

আর ইসলামে (ধর্ষন) ব্যভিচারকে অশ্লীল ও নিকৃষ্ট কাজ ঘোষণা করা হয়েছে। পাশাপাশি এর জন্য পার্থিব ও অপার্থিব শাস্তির ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বিবাহিত ব্যভিচারী ও ব্যভিচারিণীকে আমৃত্যু পাথর নিক্ষেপ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ ইসলামী শরিয়তে ব্যভিচারী বিবাহিত হলে তার শাস্তি রজম বা পাথর নিক্ষেপে মৃত্যুদণ্ড। আর অবিবাহিত ব্যভিচারী ও ব্যভিচারিণীকে ১০০ বেত্রাঘাত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘ব্যভিচারিণী ও ব্যভিচারী—তাদের প্রত্যেককে ১০০ কশাঘাত করবে…।’ (সুরা : নুর, আয়াত : ২) তবে এ শাস্তি প্রয়োগ করবে ইসলামী রাষ্ট্রের সরকার ও প্রশাসন। অন্যদিকে কোনো কারণে এ শাস্তি আরোপিত না হলে দুনিয়ায়ই কোনো না কোনোভাবে এর শাস্তি এসে যেতে পারে। হাদিস শরিফে এসেছে, ‘ব্যভিচারের মন্দ পরিণাম ছয়টি। তিনটি দুনিয়ায় আর তিনটি আখিরাতে। দুনিয়ার তিনটি হলো—১. চেহারার সৌন্দর্য নষ্ট হওয়া, ২. দরিদ্রতা, ৩. অকালমৃত্যু। আর আখিরাতের তিনটি হলো—১. আল্লাহর অসন্তুষ্টি, ২. হিসাব-নিকাশের কঠোরতা ও ৩. জাহান্নামের কঠিন শাস্তি। (ইসলামের দৃষ্টিতে অপরাধ, ই. ফা. পৃ. ১০৯)

ধর্ষিতার করণীয়

ব্যভিচারের সমগোত্রীয় অথচ তার চেয়েও ভয়ংকর অপরাধ হলো ধর্ষণ। ইসলামে ব্যভিচারের পাশাপাশি ধর্ষণও কবিরা গুনাহের অন্তর্ভুক্ত। কোনো ব্যক্তি যদি ধর্ষণের শিকার হয়, তাহলে তার সর্বপ্রথম করণীয় হলো, সম্ভব হলে তা প্রতিরোধ করা। এমনকি যদিও তা ধর্ষণকারীকে হত্যা করার মতো পরিস্থিতি তৈরি করে, তাতেও ইসলাম সায় দিয়েছে। সাইদ ইবনে জায়েদ (রা.) বলেন, ‘আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, সম্পদ রক্ষা করতে গিয়ে যে ব্যক্তি নিহত হয়েছে, সে শহীদ। জীবন রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সে-ও শহীদ। দ্বিন রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সে শহীদ। আর সম্ভ্রম রক্ষা করতে গিয়ে যে নিহত হয়েছে, সে-ও শহীদ।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৭২; তিরমিজি, হাদিস : ১৪২১)

ইসলামী আইনবিদরা এ মর্মে ঐকমত্যে রয়েছেন যে ধর্ষণের শিকার ব্যক্তিকে ধর্ষণের কারণে অভিযুক্ত করা যাবে না। এ ক্ষেত্রে তার কোনো পাপ নেই। কেননা ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার ওপর বল প্রয়োগ করা হয়েছে। ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ আমার উম্মতের ভুলবশত করা অপরাধ, ভুলে যাওয়া কাজ ও বল প্রয়োগকৃত বিষয় ক্ষমা করে দিয়েছেন।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২০৪৫)

ধর্ষকের শাস্তি

ধর্ষণের ক্ষেত্রে এক পক্ষ থেকে ব্যভিচার সংঘটিত হয়। আর অন্য পক্ষ হয় মজলুম বা নির্যাতিত। তাই মজলুমের কোনো শাস্তি নেই। শুধু জালিম বা ধর্ষকের শাস্তি হবে। ধর্ষণের ক্ষেত্রে তিনটি বিষয় সংঘটিত হয়। এক. ব্যভিচার। দুই. বল প্রয়োগ। তিন. সম্ভ্রম লুণ্ঠন। ব্যভিচারের জন্য কোরআনে বর্ণিত ব্যভিচারের শাস্তি পাবে। ইসলামে ব্যভিচারের শাস্তি ব্যক্তিভেদে একটু ভিন্ন। ব্যভিচারী যদি বিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে পাথর মেরে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে। আর যদি অবিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে ১০০ বেত্রাঘাত করা হবে। হানাফি, শাফেয়ি ও হাম্বলি মাজহাব মতে, ধর্ষণের জন্য ব্যভিচারের শাস্তি প্রযোজ্য হবে। তবে ইমাম মালেক (রহ.)-এর মতে, ধর্ষণের অপরাধে ব্যভিচারের শাস্তির পাশাপাশি ‘মুহারাবা’র শাস্তি প্রয়োগ করা হবে। ‘মুহারাবা’ হলো অস্ত্র দেখিয়ে বা অস্ত্র ছাড়াই ভীতি প্রদর্শন করে ডাকাতি করা কিংবা লুণ্ঠন করা। এককথায় ‘মুহারাবা’ হলো পৃথিবীতে অনাচার সৃষ্টি, লুণ্ঠন, নিরাপত্তা বিঘ্নিতকরণ, ত্রাসের রাজ্য কায়েম করা ইত্যাদি। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ ‘মুহারাবা’র শাস্তি এভাবে নির্ধারণ করেছেন, ‘যারা আল্লাহ ও তাঁর রাসুল। বর্তমানে দেশে ধর্ষণের মাত্রা বেড়ে যাওয়াতে প্রতিটি মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানো এখন সময়ের দাবি। দেশের প্রতিটা মানুষেরই এর শাস্তি সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত। আমাদের দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইন ২০০৩ সেকশন ৯ অনুসারে ধর্ষণের শাস্তি হলো, ধর্ষণের কারণে বা ধর্ষণের পর ভিক্টিমের কোনো ক্ষতি হলে বা ভিক্টিম র্ধষণের পর মারা গেলে ধর্ষণকারীকে মৃত্যুদন্ড দিতে হবে এবং এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হবে।

কোন নারী বা শিশুকে একাধিক ব্যক্তি মিলে ধর্ষণ করলে এবং সেই মহিলা বা শিশু মারা গেলে বা আহত হলে প্রত্যেক ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড এবং এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হবে।

যেকোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণের পর মৃত্যু বা আঘাত করার চেষ্টা করলে, তাকে কঠোর কারাদণ্ড এবং জরিমানা করা হবে।তবে ধর্ষণের বর্ণনা যথাযথভাবে দিয়ে দোষ স্বীকার করলে দশ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হবে, যা পরবর্তীতে কমে ৫ বছর পর্যন্ত হতে পারে কিন্তুএর কম মেয়াদ নয় এবং জরিমানাও হতে পারে।

কোনো নারী পুলিশ হেফাজতে ধর্ষিত হলে হেফাজতের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যকেও নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থতার জন্য শাস্তি দেওয়া হবে। সেইসাথে ধর্ষণের বর্ণনা যথাযথভাবে দিয়ে দোষ স্বীকার করলে দশ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হবে, যা কমে ৫ বছর পর্যন্ত হতে পারে এবং জরিমানাও হতে পারে।

আমাদের সমাজে সাধারণত আগে দেখা যেতো যে ধর্ষিতাকে একঘরে করে রাখা হতো বা সমাজে তাকে বাঁকা চোখে দেখা হতো। সেইসাথে তার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দেয়া হতো বা যা এখনো হয়। তবে পরিস্থিতি কিন্তু পুরোটা না পাল্টালেও এখন অনেকটাই পাল্টেছে। মানুষ এখন অনেক বেশি সোচ্চার,এখন আর ঘরের কোণে লুকিয়ে না থেকে এই ধরণের অন্যায়ের বিরুদ্ধে কঠোরভাবে প্রতিবাদ করে মানুষ পাশাপাশি নেয় আইনের আশ্রয়। এ ব্যাপারে আমাদের দেশর আইন যেমন কঠিন তেমন আইনের প্রয়োগও হয় বেশ দ্রুত। আমাদের দেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই তিনি ধর্ষনে সর্বচ্চ শাস্তি মৃত্যু দন্ড করেছেন। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে এ সংক্রান্ত আইনটির একটি সংশোধনী প্রস্তাব অনুমোদন করেছে বাংলাদেশের সরকার। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন যে, যেহেতু সংসদ অধিবেশন বসছে না, তাই আগামীকালই (মঙ্গলবার) রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ জারীর মাধ্যমে এটি কার্যকর করা হবে। আইনের ৯/১ ধারায় ধর্ষণের জন্য সাজা ছিল যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, এটি সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের প্রস্তাব আজ মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করেন আইনমন্ত্রী। এখন থেকে ধর্ষণের শাস্তি হবে হয় মৃত্যুদণ্ড না হলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

সেইসঙ্গে ৯/৪ ধারাতেও সংশোধন আনা হয়েছে। কিছুদিন আগে হাইকোর্ট বিভাগের দ্বৈত বেঞ্চ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১/গ ধারায় সাধারণ জখম আপোষযোগ্য করার প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করেছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ মন্ত্রিসভার বৈঠকে আইনের সকল সংশোধনী প্রস্তাব মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানান আইনমন্ত্রী।এর ফলে বিদ্যমান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের সংশ্লিষ্ট ধারাগুলোয় সংশোধনী আনা হবে। এছাড়া নতুন পুরান মিলিয়ে ধর্ষণের সব মামলাগুলোর আইনি প্রক্রিয়া দ্রুততম সময়ে নিষ্পত্তি করা হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। এই সংশোধনীর কারণে বাংলাদেশে ধর্ষণের হার কমবে বলে আশা করছেন মন্ত্রী। ধর্ষণের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী আন্দোলনের মুখে সরকার আইন পরিবর্তনের এই পদক্ষেপ নিল।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আরও জানিয়েছেন, যেহেতু সংসদ অধিবেশন আপাতত চলমান নেই, তাই সরকার সংশোধিত আইনটি একটি অধ্যাদেশ হিসেবে জারি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ধর্ষণের বিরুদ্ধে আন্দোলনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার দাবি এসেছে, তাই সরকার তা বিবেচনায় নিয়েছে কয়েকদিন ধরে ঢাকাসহ দেশটির বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ থেকে এ দাবি উঠলে এ নিয়ে নানা বিতর্কও আছে। ধর্ষণের বিচার তাই নিশ্চিত করতে হবে। মৃত্যুদণ্ডের কাগুজে আইনের চেয়ে নিশ্চিত বিচারের পরিবেশ সৃষ্টি করা অনেক বেশি প্রয়োজন এখন। জনগণের অর্থে পরিচালিত পুলিশ, সরকারি উকিল আর আদালত সে কাজটি কীভাবে সর্বোত্তমভাবে করতে পারবে, সেটা খুঁজে বের করা কঠিন কিছু নয়।
সকলের মাঝে সচেতেনতা সৃষ্টি করতে হবে, ধর্ষনের ঘটনা কমে আসবে ইনসাল্লাহ।##

লেখক : মোঃ হায়দার আলী
সভাপতি, জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা।
সাধারণ সম্পাদক, গোদাগাড়ী প্রেস ক্লাব।

প্রধান শিক্ষক, মহিশালবাড়ী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়
গোদাগাড়ী, রাজশাহী।

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। বাংলাদেশ টুডে এবং বাংলাদেশ টুডে-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)