নওয়াজ শরিফের মহিষ বিক্রি করলেন ইমরান খান

প্রকাশিত: ৫:৫৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৮ | আপডেট: ৫:৫৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৮

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতা গ্রহণের পর সরকারি ব্যয় সংকোচনের ঘোষণা দিয়েছিলেন ইমরান খান। সেই ঘোষণা অনুয়ায়ী নানা পদক্ষেপ নিচ্ছেন তিনি। কয়েকদিন আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বিলাসবহুল গাড়ি নিলামে বিক্রি করার মাধ্যমে এই ঘোষণার বাস্তবায়ন শুরু করেন। তারই অংশ হিসেবে এবার বিক্রি করা হলো সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কেনা আটটি দামী মহিষ। খবর বিবিসি’র।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এতদিন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়েই ছিলো এই মহিষগুলো। এর দুধ সরবরাহ করা হতো সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং তার পরিবারের সদস্যদের। তবে সরকারের ব্যয় সংকোচনের নীতি হিসেবে এই মহিষগুলো বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

নিলামে অংশ নেয়া বেশিরভাগই ছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের সমর্থক। নিলামে তোলা আটটি মহিষ বিক্রি হয় ১৯ হাজার ডলারে। কর্তৃপক্ষ জানায়, এই অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা হচ্ছে। দেশটিতে গত ১০ দিনে দ্বিতীয়বারের মতো সরকারি সম্পদ বিক্রির ঘটনা ঘটল।

নিলামে অংশ নেয়া হাসান লতিফ নামের এক ব্যক্তি বলেন, তার একটি বাণিজ্যিক দুধের খামারে ১০০টির বেশি মহিষ আছে। কিন্তু ঐতিহাসিক রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার কারণে তার নেতা নওয়াজের একটি মহিষ কিনেছেন তিনি। নওয়াজের সম্মানেই মহিষটি কিনছেন। সুযোগ পেলে এই মহিষটি নওয়াজকে উপহার দেবেন বলেও জানান তিনি।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনের এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘আমরা যে দাম আশা করেছিলাম, তার চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয়েছে মহিষগুলো। আমরা এতে খুশি।’

পাকিস্তানের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতি দমনের অঙ্গিকার করে ক্ষমতায় আসেন। এরই প্রেক্ষিতে তিনি সরকারী ব্যয় সংকোচনের নীতি গ্রহন করেন। এরই অংশ হিসেবে প্রথমবার নিলামে তোলা হয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বিলাসবহুল বুলেটপ্রুফ গাড়ি। এরপর তিনি এই মহিষ বিক্রি করলেন।

তবে সমালোচকরা বলছেন, ইমরান খানের কথা এবং কাজে কোনো মিল নেই। ব্যয় সংকোচনের কথা বললেও ক্ষমতা গ্রহণের কিছুদিন পর মাত্র ৯ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়ার জন্য তাকে হেলিকপ্টার ব্যবহার করতে দেখা গেছে।