নকল রুমে সেনারা পোজ দিয়ে ছবি তোলেন, মোদির সফর সাজানো ছিল!

বিরোধীপক্ষের দাবি

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২০ | আপডেট: ১২:২৫:অপরাহ্ণ, জুলাই ৫, ২০২০

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লাদাখ সফর নিয়ে এবার রাজনৈতিক উত্তেজনা বাড়ছে। প্রধানমন্ত্রী যেখানে আহত সেনাদের সঙ্গে দেখা করেন তা নাকি হাসপাতাল ওয়ার্ডই নয়। এমনই দাবি করছেন বিরোধীরা। মোদির জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সেনাদের অন্য ঘরে নিয়ে গিয়ে তাদের বসিয়ে রেখে ছবি তোলার জন্য একপ্রকার ‘পোজ’ দিতে বলা হয়েছিল বলেও দাবি করছেন বিরোধীরা। এমন নানা কটুক্তি ও অভিযোগকে এদিন ‘দুর্ভাগ্যপূর্ণ’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে ভারতীয় সেনাদের তরফ থেকে। একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, যে ঘরে জওয়ানরা ছিলেন সেটাকে বহু আগেই কভিড প্রোটোকল অনুযায়ী ওয়ার্ডে পরিণত করা হয়েছে। যা আসলে একটি অডিও-ভিডিও ট্রেনিং রুম।

ওইদিন সেনাবাহিনী বিবৃতি দিয়ে জানায়, এটা দুর্ভাগ্যজনক যে, আমাদের সাহসী সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে কেমন আচরণ করা হয় তা নিয়ে নানা ধরনের মন্তব্য করা হচ্ছে। সশস্ত্র বাহিনী তাদের কর্মীদের সর্বোত্তম সম্ভাব্য চিকিৎসা দেয়।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার গালোয়ানের সংঘর্ষে আহত সেনাসদস্যদের সঙ্গে দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। লেহর সেনা হাসপাতালে গিয়ে জওয়ানদের মনোবল বাড়ানোর কাজ করেন তিনি। কিন্তু বিরোধী শিবির ও সমালোচকদের চোখে বেশ কিছু খটকা লাগে সেনাদের দেখে।

প্রথমত দেখা যায়, মোদি যে হলরুমে গিয়ে সেনাদের সঙ্গে কথা বলছেন সেটার সিলিংয়ে প্রজেক্টর লাগানো। যা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় সেটা হাসপাতালের ওয়ার্ড নয়। দ্বিতীয় কোনো আহত সেনাকে শুয়ে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি, প্রত্যেকে বসে ছিলেন। তৃতীয়ত, কোনো জওয়ানের পাশে ন্যূনতম জলের বোতল বা ফল কিছুই ছিল না। চিকিৎসার কোনো সামগ্রীই দেখা যায়নি। ফলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, মোদি নিজের প্রচারের জন্য সীমান্তে আঘাত পাওয়া জওয়ানদের সঙ্গে কেন এমন আচরণ করছেন, কেনইবা তাদের কষ্ট দিচ্ছেন? এমন একাধিক প্রশ্নের মুখে অবশেষে সাফাই দিলো সেনা। তবে বহু প্রশ্নের উত্তর অধরাই রয়ে গেল।

সূত্র: মহানগর২৪