নরসিংদীর মনোহরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৫৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৫৩:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৮

নরসিংদীর মনোহরদীতে জায়েদা আক্তার (৩৫) নামের এক গৃহবধূর অর্ধগলিত ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে মনোহরদী থানা পুলিশ। জায়েদা পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের হাররদিয়া গ্রামের মিয়া হোসেনের মেয়ে। ঘটনার পর থেকে তার স্বামী তাইজ উদ্দিন পলাতক রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মনোহরদী পৌরসভা হিন্দু পাড়া এলাকার উত্তরা ভবন থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত এক বছর আগে পরিবারের অমতে জায়েদা পার্শ্ববর্তী শিবপুর উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের চরনগরদী গ্রামের তাইজ উদ্দিনের সাথে বিয়ে হয়।

বিবাহর পর থেকে মনোহরদী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের হিন্দু বাড়ি এলাকার উত্তরা ভবনে একটি কক্ষে ভাড়া থাকতেন স্বামী-স্ত্রী দুজন।বিয়ের কিছু দিন পর থেকেই স্ত্রী জায়েদাকে পরিবারের কাছ থেকে টাকা এনে দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। টাকা না পেয়ে তাইজ উদ্দিন প্রায় সময় স্ত্রীর সাথে ঝগড়া করতো।

এ ঘটনার কিছু দিন আগে তাইজ উদ্দিন টাকার জন্য স্ত্রী জায়েদাকে মারপিট করলে জায়েদা ছোট বোন খোদেজার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। কিছু দিন আগে জায়েদা তার ভাড়া বাড়ি পৌর এলাকার উত্তরা ভবনে ফিরলে স্বামী তাকে বেদড়ক পিটুনিসহ জখম করে।

এ নিয়ে কিছুদিন ধরে জায়েদাকে দেখতে না পেয়ে তার আত্মীয়স্বজন খুঁজাখোজি শুরু করে। পরে গত বৃহস্পতিবার জায়েদার ভাড়া করা বাড়ি উত্তরা ভবনে খোঁজ নিলে ঘরে বাহির থেকে তালা বদ্ধ অবস্থায় দেখতে পায়। সন্দেহ হলে পুঁলিশে খবর দেয়। পুঁলিশ ঘরের তালা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে ঝুলন্ত অবস্থায় জায়েদার অর্ধগলিত লাশ দেখতে পায়।

পরে পুঁলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্বার করে থানায় নিয়ে আসে।
নিহতের ছোট বোন নাসিমা ও খোদেজা জানান, স্বামী তাইজ উদ্দিন একজন বখাটে। টাকার জন্য আমার বড় বোন জায়েদাকে মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে হত্যা করে তার লাশ ঘরের মেঝেতে ঝুলিয়ে পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে মনোহরদী থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, জায়েদাকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।এ ছাড়াও তার স্বামী পলাতক থাকায় প্রাথমিক ভাবে আমরা তাকে সন্দেহ করছি।
এ নিয়ে নিহতের ছোট ভাই বাদী হয়ে মনোহরদী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।