নরসিংদী শহর যুবলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও মারধরের অভিযোগ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৯ | আপডেট: ৬:৫৪:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৯

মশিউর রহমান সেলিম,নরসিংদী প্রতিনিধি : নরসিংদী শহর যুবলীগের সভাপতি দিদারুল হক সরকার বিপ্লবের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকা চাঁদাবাজি ও মারধরের অভিযোগ করেছে একটি ডেভেলপার কোম্পানী। শনিবার দুপুরে শহরের বৌয়াকুড় এলাকায় কোঠাবাড়ী কনস্ট্রাকশন নামে একটি ডেভেলপার কোম্পানী আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরহাদ হোসেন এ অভিযোগ করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে ফরহাদ হোসেন বলেন, প্রতিষ্ঠানটি নরসিংদী শহরের উন্নয়নের অংশ হিসেবে একাধিক বহুতল ভবন নির্মাণ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় শহরের বৌয়াকুড় স্টেশন রোড এলাকায় কোঠাবাড়ী শপিং কমপ্লেক্স নামে একটি দশতলা ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু করে। এরই মধ্যে সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় সাংসদ মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরুর ভাতিজা শহর যুবলীগের সভাপতি দিদারুল হক সরকার বিপ্লব চাদার দাবীতে বিভিন্ন সময় হুমকি-দমকি দিয়ে আসছিল।

এরই মধ্যে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারী নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধনের দিন ধার্য করে তার প্রস্তুতি নিতে থাকলে বিপ্লব মোবাইল ফোনে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান হান্নানের কাছে ৫০ লাখ টাকা চাঁদা ও একটি ফ্রি দোকান দাবি করে। এর আগে বিপ্লবের ছোট ভাই শিহাব কোম্পানির চেয়ারম্যানকে হান্নানকে তুলে নিয়ে মানসিক নির্যাতন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রজেক্টের কন্টাকটর নিয়োগ, তাদের ইচ্ছেমত দামে ইট, বালি, সিমেন্ট ও পাথর তাদের কাছ থেকে নিতে হবে মর্মে জোড়পূর্বক সম্মতি আদায় করে নেন।

তিনি আরো জানান, তিনি নির্মাণ কাজ উদ্বোধনের প্রস্তুতি দেখতে প্রজেক্টে গেলে গত শুক্রবার দুপুরে বিপ্লব প্রজেক্টের ভেতরে ঢুকে তাকে মারধর করে। রাতে তাঁরা জোরপূর্বক প্রজেক্টের ভেতরে নিজেদের ঠিকাদার দাবি করে তাদের কনস্ট্রাকশনের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়ে পাইলিংয়ের সরঞ্জাম এনে রাখে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানটির এমডি ফরহাদ হোসেন বলেন, বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রীকে জানিয়েও এর কোন প্রতিকার পাননি। তাছাড়া থানায় মামলা করে তার সুফল পাবেনা বিধায় মামলা করেন তারা। এ অবস্থায় সংবাদ সম্মেলন থেকে সাবেক প্রতিমন্ত্রীর ভাতিজা বিপ্লবের চাঁদাবাজি ও অত্যাচার থেকে মুক্তি পেতে প্রশাসনের সুদৃষ্টি ও সহযোগিতা কামনা করছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান হান্নান মিয়া তার ছোট ভাই আবদুল আহাদ।

অভিযোগের ভিত্তিতে শহর যুবলীগের সভাপতি দিদারুল হক সরকার বিপ্লব যোগাযোগ করলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেন, কোঠাবাড়ীর জমি বরাদ্ধসহ সব ধরনের কর্মকান্ড আমি নিজে সমাধান করে দিয়েছি। অনুষ্ঠানের আয়োজনে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে রাখার কথা বললে কোম্পানির চেয়ারম্যান আমাদের সাথে খারাপ আচরণ করেন। এখন তারা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অপপ্রচার করছে।