নাম করা ডাক্তার ফরহাদ পঞ্চম শ্রেণি পাশ!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ | আপডেট: ৯:০৫:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮

টিবিটি দেশজুড়েঃ ডাক্তার ফরহাদ হোসেন। পিতা- সাহেদ আলী সরকার, গ্রাম- চিলাপাড়া, তিনি এসএসসি পাশও নন। ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করে ডাক্তারি পেশায় নিয়োজিত আছেন। যমুনা তীরবর্তী গুপিয়াখালী বাজারে ডাক্তারি পেশার পাশাপাশি ফার্মেসি গড়ে রমরমা চিকিৎসা বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন।

নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার সহজ সরল মানুষকে ধোঁকা দিয়ে যাচ্ছেন। তার চিকিৎসা থেকে বাদ যাচ্ছেনা শিশু, নারী, বৃদ্ধ এমনকি, প্রসূতি নারীও। এমবিবিএস ডাক্তারের মতই দোকানে রোগী দেখে ওষুধ দিয়ে থাকেন। সরেজমিন, ফরহাদ ডাক্তারের সাথে কথা বলে জানা যায়, তার শিক্ষাগত যোগ্যতার কথা।

প্রথমে তিনি নিজেকে এসএসসি পাশ দাবি করলেও, পরে তিনি ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন বলে স্বীকার করেন। ডাক্তারি পেশার এখনও কোন সার্টিফিকেট না মিললেও ফরহাদ জানান, তিনি বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার সমিতির শাহজাদপুর উপজেলা শাখা থেকে স্বল্প মেয়াদী একটি ট্রেনিং করেছেন।

ফার্মেসির ড্রাগ লাইসেন্সও নেই তার। এলাকাবাসীর অভিযোগ, তিনি গোপনে সরকারি ওষুধ অল্পদামে কিনে অধিক লাভে বিক্রয় করছেন। ফলে রীতিমত অনিয়মের মাধ্যমে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছেন ভুয়া ডাক্তার ফরহাদ হোসেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফরহাদ বলেন, তিনি সরকারি ওষুধ বিক্রয় করেন না। এদিকে বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার সমিতির শাহজাদপুর উপজেলা শাখার সভাপতি মুন্সী আব্দুস সালাম জানান, ন্যূনতম এসএসসি পাশ না হলে তাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়না। তবে সে কিভাবে প্রশিক্ষণ পেল বোধগম্য নয়। হয়তবা ভুয়া সনদপত্র দেখিয়েই প্রশিক্ষণ নিয়েছে। এখনও সার্টিফিকেট দেয়া হয়নি।

তার বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। তবে এলাকাবাসী দাবি করছেন, ভুয়া ডাক্তার ফরহাদকে আইনের আওতায় আনা হোক। সেই সাথে সহজ সরল মানুষকে চিকিৎসার নামে ঠকিয়ে অবৈধ চিকিৎসা বাণিজ্য বন্ধ করা হোক। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. নাজমুল হুসেইন খাঁন বলেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।