‘না খেললে ফাঁকা মাঠে গোল’, বিএনপিকে নাসিম

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৫০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮ | আপডেট: ১১:৫০:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৮

নির্বাচনের মাঠে না খেলতে নামলে এবারো ফাঁকা মাঠে গোল হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) মিলনায়তনে ৩৬তম বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে নিয়োগ প্রাপ্ত চিকিৎসকদের যোগদান অনুষ্ঠানে বিএনপিকে উদ্দেশ্য কিরে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ২০১৪ সালে আপনারা মাঠে খেলেন নাই, তো আমরা কি করবো? মাঠে না খেললে তো ওয়ার্ক আউট হবেই। এবারো যদি মাঠে না খেলেন তাহলে তো আমরা ফাঁকা মাঠে গোল দিব। খেলার যেমন নিয়ম আছে, তেমন নির্বাচনী খেলারও নিয়ম আছে। হঠাৎ করে তা পরিবর্তন করা যায় না।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে। নির্বাচনী খেলায় যে দল জিতবে তারা সরকার পরিচালনা করবে। ওরা (বিএনপি) চায় এমন নিয়ম করতে হবে যাতে তারা জিততে পারে। ওদের ইচ্ছা মত নিময় পরিবর্তন করা যাবে না।

সংবিধানের দোহাই দিয়ে সরকার পার পাবে না- বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, যারা সংবিধান মানে না তারা একথা বলতে পারে। আমরা সংবিধান মানি। সংবিধানের দোহাই সবসময় দিব। সংবিধান পবিত্র দলিল। সংবিধানের আলোকে দেশ পরিচালিত হয়।

সংবিধানের বাহিরে নির্বাচন করা যাবে- বিএনপির নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ’র এমন মন্তব্যের সমালোচনায় নাসিম বলেন, সংবিধানের বাহিরে নির্বাচন করার মানে হচ্ছে দেশে অসাংবিধানিক সরকার আনা। উনি একথা বলতে পারেন। কারণ তিনি মার্শাল ‘ল’র সরকারের মন্ত্রী ছিলেন। একটা দল ছাড়া এমন কোনো দল নাই তিনি করেন নি। উনার মুখেই এগুলো সম্ভব। আমরা এগুলো বলতে পারবো না।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, সংবিধান আছে। সংবিধানের আলোকেই নির্বাচন হবে। এর বাহিরে যাওয়ায় কোনো সুযোগ নেই। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচিত সরকারের অধীনেই আগামী নির্বাচন হবে। এর কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না। জনগণ ভোট দিলে নির্বাচিত হবো, না দিলে হবো না। সংবিধানে যা লেখা আছে তা করতে হবে।

২১ আগস্টের হামলা বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, কাউকে ফাঁসানোর চিন্তা আমাদের নাই। কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ ও প্রমাণ পাওয়া গেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রণালয়ের সচিব সিরাজুল হক খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা রাখেন, বিএমএ’র সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিব) সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সালান, মহাসচিব ডা. আবদুল আজিজ, স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) নাসিমা সুলতানা প্রমুখ।