নিজেকে কুমারী দাবি করে ব্যবসায়ীকে বিয়ের পর বিচ্ছেদ, পরে অপহরণ করে ফের বিয়ে!

সিনেমাকেও হার মানানো এক বাস্তব চিত্র

প্রকাশিত: 7:15 PM, November 19, 2019 | আপডেট: 7:15:PM, November 19, 2019
ছবি: টিবিটি

মো. সেলিম মিয়া, নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদীতে মাধবদী বাজারের ব্যবসায়ি আশরাফুল হক বিপ্লব (৩২) কে প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে নিজেকে কুমারী দাবি করে বিয়ে করেন মোসাম্মৎ মনিরা ইসলাম নিপা (২৩)।

পরে ব্যবসায়ি স্বামীর কাছ থেকে কাবিনের মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করেন নিপা। তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ হওয়ার পরও থেমে নেই নিপার ছলনা। নিপা তার দলবল নিয়ে মাধবদীর রাইন ওকে মর্কেটের সামনে থেকে বিপ্লবকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

পরে বিপ্লবকে নারায়ণগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জের গাউছিয়া এলাকায় একটি পরিত্যাক্ত ফ্লাটে নিয়ে গিয়ে মারধর করে। তার সাথে থাকা দুই লক্ষ ত্রিশ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় ও প্রাণে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে একটি নিকাহ বলিউমে স্বাক্ষর রেখে আহত অবস্থায় ছেড়ে দেন নিপা চক্রের লোকজন।

এ ঘটনায় নিপার বিরুদ্ধে নরসিংদী বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা করেন আশরাফুল হক বিপ্লব। এসব ঘটনার পরও নিপা মাধবদীতে এসে উভয়ের ১০ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়েছে বলে পুনরায় বিপ্লবের স্ত্রী দাবী করছেন নিপা। তার ভয়ে ভুক্তভোগি পরিবার বাড়ি ছাড়া রয়েছে বলে জানান আশরাফুল হক বিপ্লব।

তবে মনিরা ইসলাম নিপা জানিয়েছেন, পূর্বে বিয়ে হয়েছিলো তা জেনে শুনেই বিয়ে করেছেন বিপ্লব,এরপর পারিবারিক কলহে বিপ্লবের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এর ২২ দিন পর থেকে বিপ্লব পুনরায় যোগাযোগ শুরু করে নিপার সাথে। এক পর্যায় বিপ্লবের নিপার সাথে পুনরায় বিবাহ হয় বলে দাবি করেন নিপা। নিপা বিবাহ বিচ্ছেদের দেনমোহরানার টাকা ফিরিয়ে দিয়ে বিপ্লবের সংসারে ফিরে যেতে চান বলে জানান।

বিপ্লব অভিযোগ পত্রে বলেন, এক বছর আগে মোবাইল ফোনের পরিচয় হয় নারায়ণগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানার বরপা বাগান বাড়ীর মেয়ে নিপার সাথে। সে সুবাধে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে নিপা ঢাকায় নিয়ে গিয়ে বিপ্লকে জিম্মি করে বিয়ে করে। তাদের নিকাহ পত্রে পাঁচ লক্ষ টাকা দেনমোহর উল্লেখ্য করা হয়।

বিবাহের কিছু দিন অতিবাহিত হওয়ার পর নিপা মোবাইল ফোনে বিভিন্ন সময় অপরিচিত ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে ও পরকিয়ায় লিপ্ত হয়। বিপ্লবের পরিবারের লোকজনের সাথে খারাপ আচরণ করিতে থাকে। পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় নিপা বিয়ে নামে প্রতরানা করছে। নিপার ইতিপূর্বে একাধিক বিয়ে হয়েছিল। প্রত্যেক স্বামীর নিকট হইতে মাস্তান ও সন্ত্রাসীদের মাধ্যমে বল পূর্বক দেনমোহরানা ও অন্যান্য টাকা আদায় করিয়াছিল।

পরে পারিবারিক কলহ ও নানা অশান্তির কারনে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান খাদেমুল ইসলাম ফয়সাল,মাধবদী থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুর রাজ্জাকসহ গন্যমাণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতে ও নোটারী পাবলিক এর তালাক ঘোষনাপত্র সহিত ইসলামি শরা শরিয়তের বিধান মোতাবেক নিপাকে কাবিনের ৫ লাখ টাকা ও তিন মাসের ভরণ পোষণ দিয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ করেন বিল্পব। কিন্তু বিবাহ বিচ্ছেদের পরও অর্থ হাকানোর জন্য বিল্পবকে অপহরণ করে নিয়ে যায় নিপা। বিল্পবের বাবা আ: হালিমের অভিযোগ তারা নিপার ভয়ে এখনো বাড়ি ছাড়া রয়েছেন সবাই।

এ প্রতারণা চক্রের কাছ থেকে মুক্তি পেতে মনিরা ইসলাম নিপার বিরুদ্ধে নরসিংদীর বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন তার ছেলে আশরাফুল হক বিপ্লব।

নরিসংদীর বিজ্ঞ আদালতের মামলাটি তদন্তধীন রয়েছে বলে জানান মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু তাহের দেওয়ান।