নির্জন বাড়িতে নিয়ে মাদ্রাসা ছাত্রীর সর্বনাশ, শালিসে মিমাংসার চেষ্টা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:১৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯ | আপডেট: ৭:১৪:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৯
প্রতিকী ছবি

মাদারীপুর সদর উপজেলার উত্তর হাজরাপুর গ্রামে মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত সাকিব বেপারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার রাত ৯টার দিকে সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মাদ্রাসার ছাত্রী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অভিযুক্ত সাবিক বেপারী সদর উপজেলার পশ্চিম হাজরাপুর গ্রামের রজব বেপারীর ছেলে।

শনিবার সকালে অভিযুক্ত ধর্ষক সাকিব বেপারীকে মাদারীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে বিচারক মো. সাইদুর রহমান তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুধবার বিকেলে মাদ্রাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে জোর করে একটি অটো রিকশায় নিয়ে যায় ওই মাদ্রাসার ছাত্রীকে। ওই রাতে মস্তফাপুর পর্বত বাগানের ভিতরে একটি নির্জন বাড়িতে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সাকিব। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঐ ছাত্রী বাড়িতে এসে বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের জানায়।

এ ঘটনায় এলাকার লোকজন একটি শালিস বৈঠকে বসে মিমাংশার চেষ্টা করে। পরে সমাধান না আসায় সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করে ধর্ষণের শিকার ঐ ছাত্রীর বাবা।

ছাত্রীর বাবা বলেন, আমার মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রামের শালিসরা মিমাংসা করার চেষ্টা করেছিলো কিন্তু ছেলের পরিবারের কেউ তাতে রাজি হয়নি। পরে শুক্রবার দুপুরে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে মেয়েকে ভর্তি করি। আমি আমার মেয়ের ধর্ষণকারীর কঠোর শাস্তির দাবি জানাই।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার অখিল সরকার বলেন, ধর্ষণের বিষয় নিয়ে একটি মেয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে। আমরা গাইনি ডাক্তার দিয়ে মেডিকেল চেকআপ করেছি। আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। মেয়েটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মাদারীপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ বদরুল আলম মোল্লা বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, মাদ্রাসার ছাত্রীকে সদর উপজেলার মস্তফাপুর পর্বত বাগানের ভিতরে একটি নির্জন বাড়িতে নিয়ে গিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। ধর্ষক সাকিব বেপারী (১৮) কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।