নীলফামারী-১ আসনে আওয়ামীলীগের ৮প্রার্থী : কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি ?

প্রকাশিত: ৬:২২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০১৮ | আপডেট: ৬:২২:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৯, ২০১৮

সাদিকুর রহমান স্কলার, নীলফামারী: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনে আওয়ামী লীগের ৮ প্রার্থী নিজেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছেন। কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি ? এ নিয়ে বর্তমানে হোটেল রেস্তোরা থেকে সর্বত্র আলোচনার ঝড় শুরু হয়েছে। নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা সমালোচনা।

আওয়ামীলীগের ৮ প্রার্থী কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করলেও মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন ৫ প্রার্থী। এদের মধ্যে রয়েছেন, বর্তমান এম.পি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার,ডেপুটি এট্রনি জেনারেল আলহাজ্ব মনোয়ার হোসেন, যুব মহিলালীগ নেত্রী সরকার ফারহানা আকতার সুমি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খায়রুল আলম বাবুল ও সাবেক রাষ্ট্রদূত আমিনুল হোসেন সরকার।

৮ প্রার্থীর মধ্যে অন্যরা হলেন- অবসরপ্রাপ্ত লেঃ কর্নেল তছলিম উদ্দিন, যুক্তরাজ্য প্রবাসী ব্যারিষ্টার ইমরান কবির চৌধুরী জনি ও ড. হামিদা বানু শোভা। মনোনয়ন প্রত্যাশিরা সকলেই নিজের পক্ষ থেকে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন পাবেন বলে শতভাগ আশাবাদী। এরই মধ্যে ডোমার ও ডিমলা এলাকার বিভিন্ন যায়গায় নৌকায় ভোট চেয়ে নিজের ছবি সম্বলিত পোষ্টার ও ফেষ্টুন লাগিয়েছেন অনেকে। বর্তমান এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার তিনি তৃনমুল থেকে উঠে আসা একজন আওয়ামীলীগে নেতা।

ইতিপূর্বে ইউ.পি চেয়ারম্যান থেকে দুবার উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ালীগ থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়। বর্তমানে এ আসনের দায়িত্বে থাকার সুবাদে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড সহ রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। ডেপুটি এর্টনি জেনারেল আলহাজ্ব মনোয়ার হোসেন। তিনিও দীর্ঘদিন যাবত এ এলাকার মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসাবে গনসংযোগ চালিয়ে আসছেন। তিনি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য। তিনি প্রতি সপ্তাহে ঢাকা থেকে এলাকায় এসে সাধারন মানুষের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করছেন পাশাপাশি তিনি ও রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। ফেসবুকে তিনি সবচেয়ে বেশী সরব রয়েছেন। বাংলাদেশ যুব মহিলালীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ শিক্ষা,প্রশিক্ষন ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক সরকার ফারহানা আকতার সুমি। তিনি বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির কল্যান ও পুর্নবাসন বিষয়ক সম্পাদক। তিনিও অনেকদিন ধরে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে গনসংযোগ রক্ষা করে চলেছেন। তিনি দলীয় ও সামাজিক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। ৮ প্রার্থীর মধ্যে তিনি সর্ব কনিষ্ঠ এবং তরুন নেতৃত্ব। ডোমার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খায়রুল আলম বাবুল তিনিও মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে এলাকায় গনসংযোগ চালিয়ে আসছেন। সাবেক রাষ্ট্রদূত আমিনুল হোসেন সরকার তিনি ২০০৫সালে অবসর গ্রহনের পর থেকেই মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে এলাকায় গনসংযোগ এবং সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। অবসর প্রাপ্ত লেঃ কর্নেল তছলিম উদ্দিন পি.এস.সি। তিনি কেন্দ্রে যোগাযোগ রক্ষা সহ এলাকায় এসে গনসংযোগ রক্ষা করছেন।ইতি পূর্বে তিনি দুবার জাতিসংঘ মিশনে কম্বোডিয়া ও আইভরি কোষ্টে শান্তিরক্ষা ও নির্বাচনী দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। তাছাড়া তিনি সেনাসদর,এ্যাডজুডেন্ট জেনারেল শাখা ঢাকা সেনানিবাস এবং রংপুর ও ঘাটাইল সেনানিবাসের দুটি পদাতিক ডিভিশন সদর দপ্তরে গুরুত্বপূর্ন দায়িত্বে কর্মরত ছিলেন। ব্যারিষ্টার ইমরান কবির চৌধূরী জনি তিনি যুক্তরাজ্য প্রবাসী। তিনি নীলফামারী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু আইনজীবি পরিষদের যুক্তরাজ্য শাখার আহবায়ক ও নীলফামারী জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের উপদেষ্টা। তিনিও এ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসাবে ঘোষনা দিয়ে তার লোকজন দিয়ে প্রচারনা চালিয়ে আসছেন। তিনি নিজেও সুদুর লন্ডন থেকে এলাকায় এসে গনসংযোগ চালাচ্ছেন। ড.হামিদা বানু শোভা তিনি ইতিপূর্বে এ আসন থেকে একবার নৌকা প্রতিক নিয়ে এমপি ও একবার সংরক্ষিত (মহিলা) আসনের এম.পি নির্বাচিত হন। তিনিও এবার মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে গনসংযোগ চালাচ্ছেন। অপর দিকে মহাজোটের শরীকদল জাতীয় পার্টি থেকে এ আসনে প্রার্থী হিসেবে প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছেন সাবেক এমপি আলহাজ্ব লায়ন জাফর ইকবাল সিদ্দিকী। তিনি জাতীয় পার্টি থেকে এ আসনে একবার এমপি নির্বাচিত হন। আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগ জোট গত ভাবে নির্বাচন করলে এবং এ আসনটি অপর শরীক দল জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিলে আওয়ামীলীগের উল্লেখিত মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সকল আশা নিরাশায় পর্যুবসিত হবে। এ আসন টি আওয়ালীগ রাখবে নাকি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেবে এ নিয়েও চলছে ব্যাপক জল্পনা কল্পনা।