নোয়াখালীতে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল সহযোগী

মানিক ভূঁইয়া মানিক ভূঁইয়া

নোয়াখালী প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৫:৪৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২০ | আপডেট: ৫:৪৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০২০

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে পূর্ব শক্রতার জের ধরে ফারুক হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলো মূল পরিকল্পনাকারী মামুনের সহযোগী কামাল হোসেন (৪৮)।

শুক্রবার আটককৃত আসামিকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের মুরাদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃত, কামাল সোনাপুর ইউনিয়নের মুরাদপুর গ্রামের সমির উদ্দিন বেপারি বাড়ির মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে।

পুলিশকে খবর দেয়া ব্যক্তিকে আটক ও একটি দেশীয় পাইপ গান উদ্ধার করা হলেও মূলহোতা মামুন পলাতক রয়েছে।

সোনাইমুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মো.গিয়াস উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি আরো বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ডিউটি কালীন উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের তিনতেড়ি বাজারে পুলিশের গাড়ি অবস্থান করে।

এসময় কামাল হোসেন গাড়ির নিকট এসে পুলিশকে জানায় রাজা মিয়া বাড়ির ফারুক হোসেনের ঘরে অস্ত্র আছে। তাৎক্ষণিক পুলিশ রাজা মিয়ার বাড়িতে গিয়ে ফারুককে না পেয়ে চলে আসতে লাগলে খাটের তলায় টেপ মোড়ানো একটি দেশীয় অস্ত্র আছে বলে জানায় কামাল। তখন পুলিশের এ ঘটনায় সন্দেহ জাগে। পুলিশ অস্ত্রটি উদ্ধার করে কামাল হোসেনকে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে জানতে পারে, মুরাদপুর মাদ্রাসা ওয়ালা বাড়ির রহিছ মিয়ার মামুনের সাথে রাজা মিয়া বাড়ি ফারুকের দ্বন্দ্ব রয়েছে। মামুন ফারুককে ফাঁসানোর জন্য তার ঘরে সবার অজান্তে লাল কসটেপ মোড়ানো একটি দেশীয় তৈরি পাইপ গান দিয়ে আসে এবং সহযোগী কামালকে দিয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পরে কামালকে নিয়ে মামুনের বাড়িতে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মামুন পালিয়ে যায়।

ওসি গিয়াস উদ্দিন বলেন, মামুনের সহযোগী কামাল হোসেনকে আটক করা হয়েছে এবং মামুনকে গ্রেফতার করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। আটককৃত আসামির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।