পরিচালকের ফেসবুক স্ট্যাটাসে নার্সদের ঈদ বোনাস সমস্যার সমাধান

প্রকাশিত: ৬:১৬ অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০ | আপডেট: ৬:১৬:অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের পরিচালক (উপসচিব) জনাব মোহাম্মদ আবদুল হাই পিএএ’র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার কয়েকঘণ্টার মধ্যে সমাধান হলো নার্স ও মিডওয়াইফদের পবিত্র ঈদুল-ফিতরের বোনাস সংক্রান্ত জটিলতা।

কোন কোন হাসপাতালে কর্মরত নার্সদের ঈদ বোনাস নিয়ে সমস্যা হচ্ছে তা জানতে চেয়ে এর আগে গত বুধবার (১৯ মে, ২০২০) দুপুর ১২টার দিকে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন অধিদপ্তরের পরিচালক (শিক্ষা) জনাব মোহাম্মদ আবদুল হাই পিএএ।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, “নার্সিং সেক্টরে কোন হাসপাতালে কর্মরত নার্সদের ঈদ বোনাস সমস্যা হলে এখনই কমেন্টস করেন। এক ঘন্টার মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হবে।”

তার এই স্ট্যাটাস দেওয়ার কয়েকঘন্টার মধ্যে সারাদেশের বিভিন্ন হাসপাতালে হাসপাতালে কর্মরত নার্সদের যেখানে ঈদ বোনাস নিয়ে যে ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন তা জানিয়ে কমেন্ট করেন।

উপসচিব জনাব মোহাম্মদ আবদুল হাই পিএএ বলেন, “বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতালে কর্মরত নার্সরা তাদের সর্বোত্তম ত্যাগ ও সেবা দেওয়ার মাধ্যমে অসুস্থ মানুষের ভরসার শেষ কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছেন। এবারের ঈদে নার্সদের চাহিদামতো পর্যাপ্ত ঈদ বোনাস বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।”

দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে নার্স ও মিডওয়াইফদের কল্যাণে কাজ করে যাওয়া জনাব মোহাম্মদ আবদুল হাই বলেন, “আমি অধিদপ্তরে যোগদানের পরে দেখলাম নার্সদের বেতন ও ভাতা সমস্যা হচ্ছিল। সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করে আগে যেখানে বরাদ্দ ছিল মাত্র ৮০০ কোটি টাকা। তা বাড়িয়ে প্রায় ১২০০ কোটি করা হলো। আগামী জুলাই, ২০২০ হতে হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, নার্সিং কলেজ ও ইনস্টিটিউটে যাতে বেতন ভাতা সমস্যা না হয় তার সম্ভাব্য চাহিদা তৈরি করে আগামী অর্থ বছরের জন্য ইতোমধ্যে আইবাসে ২১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।”

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী ১০ হাজার নার্স ও ৫০০০ মিডওয়াইফ নিয়োগের বিষয়ে কাজ চলছে জানিয়ে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের পরিচালক (শিক্ষা) জনাব মোহাম্মদ আবদুল হাই পিএএ বলেন, “এ সরকারের আমলে প্রায় ২৭০০০ নার্স ও মিডওয়াইফ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং বর্তমানে ২৫৫০ জন নার্সের ও ১৮৫০ জন মিডওয়াইফ নিয়োগ প্রক্রিয়াধীন আছে। নবনিয়োগপ্রাপ্ত ৫০৫৪ জন নার্সের দুই মাসের বেতন ও ঈদ বোনাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে।”