‘পরিযায়ী দুর্গা’র প্রতিমায় মুগ্ধ নেটিজেনরা

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২০ | আপডেট: ৮:৩২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২০

করোনা আবহের মধ্যেই পুজোর বাদ্যি বেজে গিয়েছে। শহর জুড়ে এখন শুধুই পুজো পুজো গন্ধ। এ বছরের পুজো অন্য বছরের তুলনায় অনেকটাই আলাদা। রয়েছে বহু বিধিনিষেধ। তবে এই বছরের শুরু থেকে করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে ভারতে বহু পরিযায়ী শ্রমিক সমস্যার মধ্যে পড়েছেন। তাই এবার পুজোয় সেই পরিযায়ী শ্রমিকদের কথাই তুলে ধরেছে কলকাতার বেহালার বড়িশা ক্লাব। দক্ষিণের দিকে সেরা পুজো গুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। পূজা উপলক্ষে কলকাতায় ‘পরিযায়ী দুর্গা’র প্রতিমা নজর কেড়েছে নেটিজেনদের।

করোনাকালীন সময়ে ভারতজুড়ে পরিযায়ী শ্রমিকদের হাহাকার শোনা গিয়েছিল। বিভিন্ন রাজ্য থেকে ঘরে ফিরতে জীবন দিতেও হয়েছে অনেককে। তাদের কষ্টের কথা সেসময় উঠে এসেছিল সংবাদমাধ্যমে। সেই বিষয়টি সামনে রেখে পরিযায়ী দুর্গার প্রতিমা তৈরি হয়েছে শিল্পী বিকাশ ভট্টাচার্যের আঁকা ছবির আদলে। যদিও সামান্য পরিবর্তন আনা হয়েছে। কলকাতার বরিষা ক্লাবে বসানো হয়েছে এই প্রতিমা।

এই প্রতিমার স্রষ্টা কৃষ্ণনগর ঘূর্ণির ভাস্কর পল্লব ভৌমিক। থিম মেকার ও মূর্তি গড়েছেন রিন্টু দাস। দেখা যাচ্ছে দেবী দুর্গা এখানে একজন পরিযায়ী শ্রমিক ও মা। লকডাউনের সময় এই চিত্র বহুবার উঠে এসেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে।

সমসাময়িক বিষয় ও রেফারেন্স আর্টের যুগলবন্দীতে বলা যায় অনবদ্য শিল্প সামনে এনেছেন শিল্পী। শিশুসন্তানকে কোলে নিয়ে পিছনে ফিরে দর্শকের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন এবং তার কপালের তৃতীয় নেত্রই বলে দিচ্ছে তিনি আসলে দেবী দুর্গা।

আশির দশকে সাধারন ভারতীয় মহিলাদের কপালে তৃতীয় নেত্র এঁকে তাদের দেবী রূপে কল্পনা করেছিলেন শিল্পী বিকাশ ভট্টাচার্য। এই সিরিজেরই একটি ছবির নাম হল ‘দর্পময়ী’। সন্তানকে কোলে নিয়ে বর্ডার সিকিউরিটির হাতে ধরা পড়ে যাওয়া এক মায়ের ছবি এঁকেছিলেন বিকাশ। সেই মায়ের কপালে তিনি দেখিয়েছিলেন তৃতীয় নেত্র। এই ছবিটি আঁকা হয় ১৯৮৯ সালে। একত্রিশ বছর আগে বিকাশ ভট্টাচার্যের আঁকা ‘দর্পময়ী’ ছবিটিই হলও ভাস্কর পল্লব ও রিন্টুর তৈরি মূর্তির মূল রেফারেন্স। এর সঙ্গে অবিশ্য তারা আরও কিছু জিনিস যোগ করে দিয়েছেন যা মূল ছবিতে ছিল না, আবার বিষয় পরিবর্তিত হওয়ার কারনে বর্ডারের বন্দুকধারী সৈন্যের ছবি বাদ গিয়েছে।

সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।