পাথরঘাটায় সৌদি প্রবাসীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা

পিবিআইয়ে তদন্তের নির্দেশ

প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০ | আপডেট: ৯:০৫:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০২০

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি: বাংলাদেশ সরকার, প্রধানমন্ত্রী, এমপি-মন্ত্রীসহ বর্তমান সরকারকে জালিম সরকারসহ বিভিন্ন কটুক্তিমুলক বক্তব্য সম্বলিত লিফলেট প্রচার করায় সৌদি প্রবাসী ফয়সাল আহমেদ শরিফকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আজ বুধবার (২১ অক্টোবর) বিকেলে ৫টার দিকে ওই মামলাটি তদন্তের জন্য পুলিশ বুরো অব ইনভেস্টিকেশনে (পিবিআই) নির্দেশ প্রদান করেন পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সুব্রত মল্লিক শুভ।

এর আগে মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) জনম্বার্থে এবং বহির্বিশ্বে রাষ্ট্রের সুনাম নস্ট হওয়ায় দুপুরে পাথরঘাটা পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সমাজসেবক রফিকুল ইসলাম কাকন বাদি হয়ে এ মামলাটি করেন।

মামলার অন্য আসামী হলেন, পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউনিয়নের নয়া মিয়া হাওলাদারের ছেলে মো. ইমরান হোসাইন, সৈয়দ আহমেদ শরিফের ছেলে মো. জিয়া শরীফ ও মাসুম শরীফ।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ফয়সাল আহমেদ শরিফ দীর্ঘদিন ধরে সৌদি থাকেন। সেখানে থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আ.লীগের এমপি-মন্ত্রী এবং রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় ‘‘বিচারের নামে প্রহসন তামাশা ধোঁকা ছাড়া আর কিছুই নয়”, ‘‘যেই দেশে সাজাপ্রাপ্ত আসামি মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে”, ‘‘বাংলাদেশ থেকে যখন ভোট চোর এমপি মন্ত্রী ও চেয়ারম্যান মেম্বাররা মক্কা মদিনায় যায় হজ্জ পালন করতে”, ‘‘ছাত্রলীগের হাতে শিশু থেকে বৃদ্ধা নারী পর্যন্ত কেউই নিরাপদ নয়”, ‘‘যেখানেই ধর্ষন সেখানেই আওয়ামী অঙ্গসংগঠন”, ‘‘অবৈধ সরকার কিভাবে অপরাধীদের বিচার করবে, সে তো নিজেই অপরাধী”, ‘‘মানুষ এখন অতিষ্ঠ ‘গৃহপালিত গণতন্ত্র” বর্তমান সরকার ইসলামের দুষমন‘‘ ষড়যন্ত্রমুলক,দেশদ্রোহীমুলক বক্তব্য সম্বলিত লেখা প্রচার করায় বিদেশে দেশের সুনাম খুন্ন হওয়ায় ৫০০ কোটি টাকার মানহানি হয়েছে। এছাড়াও জঙ্গী সংগঠনের অর্থ সহায়তাও করে ফয়সাল শরিফ। তাছাড়া অন্য আসামিদের দ্বারা দেশে সরকার ও আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে দেশেও প্রচার করাচ্ছেন প্রধান আসামী ফয়সাল আহমেদ শরিফ।

মামলার বাদি রফিকুল ইসলাম কাকন বলেন, ফয়সাল শরিফ বিদেশে থেকে স্বাধীন বাংলাদেশের একজন নাগরিক হয়েও দেশের সরকার, সরকার প্রধান, এমপি-মন্ত্রীদের নিয়ে কটুক্তি করে যাচ্ছেন। যাতে বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমুর্তি নস্ট হচ্ছে। আমি দেশের স্বার্থে মামলাটি করেছি। ইতোমধ্যেই আমাকে বিভিন্ন রকমের হুমকি দিয়ে আসছে। আমি নিরাপত্তাহীনতায় আছি।

বাদি পক্ষের আইনজীবী এপিপি মো. জাবির হোসেন বলেন, আসামীরা যা করেছে তাতে দেশের ভাবমুর্তি নস্ট হয়েছে। সৌদি প্রবাসী আসামীকে দেশে এনে রাষ্ট্রদোহিতার অপরাধের দৃস্টান্তমুলক বিচার দাবি করছি।

পাথরঘাটা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারি মো. কামাল হোসেন বলেন, মামলাটি আদালত অধিকতর পর্যালোচনা শেষে পিবিআইতে তদন্তের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।