পাসপোর্টকে বিদায় জানাবে ফেশিয়াল স্ক্যানিং

প্রকাশিত: ৯:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০১৮ | আপডেট: ৯:২৩:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১, ২০১৮

আকাশ পথে বিদেশ ভ্রমণের সময় সিকিউরিটি পার হয়ে, পাসপোর্ট দেখিয়ে,বোর্ডিং গেইটে পৌঁছাতে হয়। বিরক্তিকর মনে হলেও নিরাপত্তা খাতিরেই ভ্রমণকারীকে এতো সব প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়।

চলতি বছরের মধ্যে আনুমানিক ৪৪০ কোটি লোক বিমান ভ্রমণ করবেন। এত সংখ্যক যাত্রী সামলানো চাট্টিকানি কথা নয়। এয়ারপোর্টগুলোকে রীতিমত হিমশিম খেতে হচ্ছে।

তাই বিদেশ ভ্রমণের প্রক্রিয়াকে কম ঝামেলাপূর্ণ করতে ফেশিয়াল স্ক্যানিং প্রযুক্তির সহায়তা নিচ্ছে বিশ্বের কিছু নামি দামী এয়ারপোর্ট।

নিরাপত্তা পরীক্ষার সময় লন্ডনের হিথ্রো এয়ারপোর্টের যাত্রীদের ছবি তোলা হচ্ছে। আরেকটি ছবি তোলা হচ্ছে বোর্ডিংয়ের গেইটে। ফেশিয়াল স্ক্যানিং প্রযুক্তির সহায়তায় ছবি দুটি মিলিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বোর্ডিংয়ের গেইটও স্বয়ংক্রিয়ভাবেই খুলে যাচ্ছে। এতে সময়ও অনেক কম লাগছে। ফলে নির্ধারিত সময় প্লেন উড্ডয়ন করা সম্ভব হচ্ছে।

এ বিষয়ে ডিজিটাল এয়ারপোর্টের ডিজাইনার রাউল কুপার বলেছেন, একদিন হয়তো আর পাসপোর্ট স্ক্যান করারও প্রয়োজন পড়বে না।

ভবিষ্যতে দুবাই ও ইউএইউ এয়ারপোর্টগুলোতেও বায়োমেট্রিক (ছবি ও ফিঙ্গারপ্রিন্ট) প্রযুক্তি ব্যবহারের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। সিঙ্গাপুরের চ্যাঙ্গি এয়ারপোর্টেও ইতোমধ্যে ফেশিয়াল স্ক্যানিং প্রযুক্তি নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানো হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ডেলটা এয়ারলাইন্সও চেক ইন, সিকিউরিটি, বোর্ডিং ও কাস্টমসে ফেশিয়াল স্ক্যানিং প্রযুক্তি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দেশটির কাস্টমস ও বর্ডার প্রটেকশন সংস্থা ফেশিয়াল রিকগনিশন প্রযুক্তি ব্যবহার করে পরিচয় নিশ্চিত করতে এয়ারলাইন্সগুলোর সঙ্গে কাজ করা শুরু করেছে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে ২০ টি এয়ারপোর্টে প্রযুক্তিটির ব্যবহার শুরু হবে।