পিরোজপুরে মুকুটহীন এক সম্রাটের নাম মিরাজুল ইসলাম

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৫ অপরাহ্ণ, মে ১২, ২০২১ | আপডেট: ৬:২৫:অপরাহ্ণ, মে ১২, ২০২১

মজিবর রহমান, পিরোজপুর প্রতিনিধি: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকীকে মিরাজুল ইসলাম ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে ভান্ডারিয়ায় শতাধিক হতদরিদ্র পরিবারকে জমিসহ পাকা বাড়ি নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে বেকার যুবকের পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ৫০টি ইজিবাইক বিতরণ, করোনা ভাইরাস এ প্রথম ধাপে ৫০ হাজার পরিবার কে মানবিক সহয়তা প্রদান, আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দলীয় নেতা-কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকদের মাঝে ৩৫ হাজার পাঞ্জাবি বিতরণসহ সমাজের সুবিধা বঞ্চিত অসহায় মানুষকে নগদ অর্থ এবং মানবিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়ে আলোচনার শীর্ষে জেলার ১০ তম শ্রেষ্ঠ করদাতা, দেশের শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, পিরোজপুর জেলার মুকুটহীন সম্রাট’ ভাণ্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিরাজুল ইসলাম।

জানা গেছে, ভান্ডারিয়া উপজেলা পরিষদের সুযোগ্য উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম জাতির পিতার”বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে ভাণ্ডারিয়া সদর, ১নং ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়ন, ২নং নদমূলা শিয়ালকাঠি ইউনিয়ন, ৩নং তেলখালী ইউনিয়ন, ৪নং ইকড়ী ইউনিয়ন, ৫নং ধাওয়া ইউনিয়ন ও ৭নং গৌরিপুর ইউনিয়নের শতাধিক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে প্রতিটি বাড়ি ১ লক্ষ ৭১ হাজার টাকা খরচে নির্মাণ করে হস্তান্তর করবেন।ইতোমধ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে থাকবে একটি করে “বঙ্গবন্ধু পল্লী” । প্রতিটি পল্লীতে আধুনিক সুবিধা সম্পন্ন ১৪-১৬ টি পাকা বাড়ি নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি বাড়িতে থাকবে ২টি করে শোবার ঘর, রান্নাঘর, বাথরুম ও বারান্দা। এছাড়াও থাকবে সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ ও পানির সু-ব্যবস্থা। পল্লীর বাসিন্দাদের জন্য থাকবে পুকুর, শিশুদের শারীরিক বিকাশের জন্য থাকবে খেলার মাঠ, বাড়ির সামনে থাকবে ৫ ফুট প্রশস্ত রাস্তা। প্রতিটি বাড়ির জন্য বরাদ্দ রয়েছে ২ শতাংশ করে জায়গা।

বৈশ্বিক করোনা ভাইরাস (কোভিড -১৯) এর প্রথম ধাপে মিরাজুল ইসলাম ওয়েল ফেয়ার ফাউন্ডেশন এর অর্থায়নে তিনি নিজে ঘরে ঘরে গিয়ে কর্মহীন ৫০ হাজার পরিবারের মাঝে চাল,ডাল,তেল,বুট ও চিনি মানবিক খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ঠেকাতে ও উপজেলা চেয়ারম্যান মানবিক এ খাদ্য সহায়তা দেয়া অব্যাহত রেখেছেন।
আসন্ন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ভান্ডারিয়া উপজেলায় ২৯ হাজার,মঠবাড়িয়া উপজেলায় ৪ হাজার, কাউখালি উপজেলায় ১ হাজার,ইন্দুরকানী উপজেলায় ১ হাজার পাঞ্জাবি দলীয় নেতা-কর্মী,জন প্রতিনিধি সহ নানা শ্রেনী পেশার মানুষকে উপহার দিয়েছেন। মানবিক সহায়তা ছাড়াও জনসাধারণের কল্যানে অসংখ্য উদ্যোগ বিভিন্ন মহলে প্রশংসিত হয়েছে। সৎ নির্ভীক ও মানবতার ফেরিওয়ালা ভান্ডারিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম বাংলাদেশ টুডে এর জেলা প্রতিনিধিকে জানান ,দক্ষিণ এশিয়ার শান্তির অগ্রদূত,মানবতার নেএী মাননীয় সফল প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন, ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’। সেই লক্ষ নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষে ভাণ্ডারিয়া উপজেলার ৭ ইউনিয়নের হতদরিদ্র, ভুমিহীন ও গৃহহীন পরিবার গুলো মাঝে পাকা বাড়ি নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে । ইতোমধ্যে আমরা জমি ক্রয়ের প্রক্রিয়া শুরু করেছি।

তিনি আরো জানান, জাতির পিতার সোনার বাংলার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।বাংলাদেশে উন্নয়নের মহাসড়কে। পদ্বা সেতু, পায়রা বন্দর অজ দৃৃৃশ্যমান। এ ছাড়া সমুদ্র বিজয় ভারতের সাথে দীর্ঘ ৬২ বছরের সীট মহল সমস্যার সমাধান, গনতন্ত্র ,মানবাধিকার, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন,সুশাসন ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে ডিজিটাল বাংলাদেশের রুপকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর জন্য বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে সামিল হয়েছে।