পুরষ্কার না পেয়ে ‘রাগে’ ফুঁসছেন রোনালদো

প্রকাশিত: ১:১৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৮ | আপডেট: ১:১৭:অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০১৮

উয়েফার বর্ষসেরা পুরষ্কার না পেয়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ‘রাগে’ ফুঁসছেন বলে জানিয়েছেন তার বর্তমান কোচ মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি। আর এই কারণেই রোনালদো বৃহস্পতিবার মোনাকোতে যাননি বলেও জানান জুভেন্টাস কোচ। তবে পর্তুগিজ তারকার মোনাকো না যাওয়ার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে তাকে শ্রদ্ধা জানানো উচিত বলে মনে করেন তিনি।

এবার উয়েফার বর্ষসেরার পুরষ্কার জেতেন রোনালদোর রিয়াল সতীর্থ লুকা মদ্রিচ। মোনাকোর জমকালো অনুষ্ঠানে উপস্থিত হননি সিআর সেভেন। অনুষ্ঠান শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে ক্লাব রোনলদো জানান, তিনি সেখানে যেতে পারছেন না। তবে তিনি কি আগেই জেনে গিয়েছিলেন যে, এবার দ্বিতীয় হচ্ছেন? সেটা অবশ্য স্পষ্ট করেননি জুভেন্টাস কোচ।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যালেগ্রি বলেন, ‘এটা তার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। তার অন্যসব ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তের মতো এটাকেও শ্রদ্ধা করতে হবে।’

এরপরই আসল কথাটা বলেন জুভ কোচ, ‘গতকাল (বৃহস্পতিবার) সে খুবই রেগে ছিল। কারণ তিনি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছেন। সেই সঙ্গে নিজে ১৫টি (সর্বোচ্চ) গোল করেছেন। এই পরিসংখ্যান বলে যে, তিনি সবসময় সেরা হতে চান।’

দ্বিতীয় হওয়ার পথে সাংবাদিক এবং কোচদের দেয়া ভোট রোনালদো পেয়েছেন ২২৩টি। আর বর্ষসেরা হওয়া মদ্রিচ পেয়েছেন ৩১৩টি ভোট। তিনে থাকা লিভারপুলের মিশরীয় তারকা মোহামেদ সালাহ’র বক্সে যায় ১৩৪টি ভোট।

রোনালদোর সেরা পুরষ্কার না পাওয়ার ঘটনাকে হাস্যকর ও লজ্জাজনক হিসেবে মন্তব্য করেছেন তার এজেন্ট জর্জ মেন্ডিস। ক্রোয়েট তারকার পুরষ্কার জয়ে খুশি হতে পারেনি রোনালদোর পরিবারও। মদ্রিচ কীভাবে সেরা হয় সে প্রশ্ন তুলেছেন সিআর সেভেনের বোন।

সংবাদ সম্মেলনে জুভেন্টাসের সামনের ম্যাচ নিয়ে অ্যালেগ্রি বলেন, ‘আমি বলব যে, গত মৌসুমটা রোনালদোর জন্য গ্রেট মৌসুম ছিল। আগামীকাল (শনিবার) তিনি পার্মার বিরুদ্ধে মারিও মানজুকিচের সঙ্গে খেলতে যাচ্ছেন। অনুশীলন শেষেই আমি সিদ্ধান্ত নেব, তৃতীয় বা চতুর্থ স্ট্রাইকার হিসেবে কে বা কারা খেলবেন।’

এই মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে জুভেন্টাসে যোগ দিয়েছেন রোনালদো। ‘তুরিনের বুড়ি’দের হয়ে দুটি ম্যাচ খেললেও এখন পর্যন্ত গোলের দেখা পাননি রিয়ালের সাবেক গোলমেশিন। শনিবার পার্মার বিরুদ্ধে তৃতীয় ম্যাচেই সিরি আ’তে হিসাবের খাতাটা খুলতে চান অনুশীলন ম্যাচে আট মিনিটে গোল পাওয়া রোনালদো।