প্রত্যেক জুমায় জান্নাতে বাজার বসে!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:৪৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৮ | আপডেট: ২:৪৫:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২, ২০১৮
ছবি : প্রতীকী

টিবিটি ধর্ম ও জীবনঃ জান্নাতের অবস্থা কেমন হবে, জান্নাতের নেয়ামতরাজির বৈশিষ্ট্য কী এটা সকল মু‘মিন মুসলমানের জানা উচিত। যাতে করে এসব জেনে সেগুলো পাওয়ার জন্য বেশী বেশী আমল করতে পারে।

মানুষের অন্তরে যত কল্পনা হয়, চিন্তার যতটুকু শক্তি ও উদারতা রয়েছে, অন্তরের যত ব্যাপ্তি রয়েছে এগুলোর থেকে হাজারও কোটি বেশী বড় আল্লাহর নেয়ামত। কুরআন ও হাদীসে শুধু সামগ্রিক চিত্র বর্ণনা করা হয়েছে।





পৃথিবীর বাজারের মত জান্নাতের বাজার নয়। পৃথিবীর বাজারগুলোর চেয়ে জান্নাতের বাজারের নিয়ম-নীতি ভিন্ন। সেখানের কোন ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড থাকবে না। সেখানে ক্রয়-বিক্রয় থাকবে না।

আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে এসেছে, প্রত্যেক জুমায় জান্নাতি লোকেরা জান্নাতের বাজাররে একত্রিত হবেন। তারপর উত্তরদিকের মৃদুবায়ু প্রবাহিত হয়ে সেখানকার ধূলা-বালি তাদের মুখমণ্ডল ও পোশাক-পরিচ্ছদে গিয়ে লাগবে। এতে তাদের সৌন্দর্য এবং শরীরের রং আরো আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।





তারপর তারা ফিরে আসবে নিজেদের পরিবারের কাছে। এসে দেখবে, পরিবারের লোকদের শরীরের রং এবং সৌন্দর্যও বহুগুণ বেড়ে গেছে। পরিবারের লোকেরা তাদের বলবে, আল্লাহর শপথ!

আমাদের কাছ থেকে যাবার পর তোমাদের সৌন্দর্য বেড়ে গেছে। উত্তরে তারাও বলবে, আল্লাহর শপথ! তোমাদের শরীরের সৌন্দর্যও তোমাদের নিকট থেকে আমরা যাবার পর বহুগুণে বেড়ে গেছে। (মুসলিম, হাদিস নং: ২৮৩৩, ১৮৮৯)





আলী (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, জান্নাতে একটি বাজার রয়েছে। সেখানে যখনই কোনো ব্যক্তির যে ধরনের মুখাবয়ব (ও প্রতিকৃতি) ধারণ করতে চাইবে, সঙ্গে সঙ্গে সে সেই আকৃতি ধারণ করতে পারবে। (মিশকাত, হাদিস নং: ৫৬৪৬, ১৯৮২; তিরমিজি, হাদিস নং: ২৫৫০)

সাঈদ ইবনুল মুসাইয়াব (রহ.) থেকে বর্ণিত রয়েছে। তিনি একদিন আবু হুরায়রা (রা.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলে আবু হুরায়রা (রা.) বললেন, আল্লাহুর কাছে দোয়া করি যেন তিনি আমাকে এবং তোমাকে জান্নাতের বাজারে একত্রিত করেন।