প্রভুর শেষকৃত্যে শেষ শ্রদ্ধা হাতির, আবেগঘন ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:১৬ অপরাহ্ণ, জুন ৮, ২০২১ | আপডেট: ৬:১৬:অপরাহ্ণ, জুন ৮, ২০২১

মানুষে-মানুষে বন্ধুত্ব। তৈরি হয় নানা নজির। জন্ম নেয় আলোচনার। এই বাইরেও ভিন্ন কিছু সম্পর্ক, বন্ধুত্ব সব আলোচনাকে ছাপিয়ে যায় কখনো কখনো। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে মানুষ ও পশুর বন্ধুত্বের এমন একটি ঘটনা। বেশ হৃদয়বিদারক। যা চোখে পানি এনেছে সবার।

ঘটনাটি প্রয়াত মাহুত (হস্তিচালক বা রক্ষক) ও তার হাতিকে নিয়ে। দু’জনের ২৫ বছরের বন্ধুত্বের গভীরতার সাক্ষী হলো নেটদুনিয়া, ২ মিনিট ২০ সেকেন্ডের ভিডিওটি দেখে চোখ মুছলেন নেটিজেনরাও

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের খবরে বলা হয়, ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন দামোদরণ নায়ার ওরফে ওমানাচেত্তন। তারপরেই তাঁর শেষকৃত্যে সম্মান জানাতে হাজির পালাট্টু ব্রাহমাদাতান। দীর্ঘ শুড় দিয়ে সেই পোষা হাতি ওমানাচেত্তনের মৃতদেহ স্পর্শ করে থাকলেন দীর্ঘক্ষণ। যা দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন গ্রামবাসী সহ আত্মীয় পরিজনরা। সেই হাতিকে জড়িয়ে কাঁদতে দেখা যায় মৃত মাহুতের সন্তানকেও।

তার কিছুক্ষণ পরেই হাতিটি শুঁড় নামিয়ে চলে যান শেষ কৃত্যের শোক বাসর থেকে। এমন মর্মান্তিক আবেগী ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলে দেয়। নেটিজেনরা হাতির সেই আবেগে ভেসে যান। কমেন্ট সেকশন ভরিয়ে তোলেন মন্তব্যে।

সংবাদমাধ্যমে জানা গিয়েছে, দামোদরণ ৬০ বছর ধরেই মাহুতের পেশায় নিযুক্ত ছিলেন। আর হাতি ব্রাহমাদাঠানের মাহুত ছিলেন গত ২৫ বছর ধরেই। দুজনে একাধিক উৎসবে যোগ দিয়েছেন।

কোট্টায়ামের পুত্তুপল্লির এক বাসিন্দা ছিলেন ব্রাহমাদাঠানের প্রথম মালিক। তারপর সেই হাতিকে কিনে নেন রাজেশ এবং মনোজ। এরপরে দামোদরণ আর পালাট্টুর সাক্ষাৎ হয় ২৫ বছর আগে।

হাতির মালিক রাজেশ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, “দামোদরণের শেষ ইচ্ছা ছিল মৃত্যুর আগে প্রিয় হাতিকে একবার দেখার। এদিন শেষকৃত্যে সেই ইচ্ছা পূরণ করা হয়েছে।”

রাজেশ জানিয়েছেন, প্রিয় হাতিকে পোষ্য নয়, নিজের সন্তানের মর্যাদা দিতেন দামোদরণ। হাতিটিও তাঁর পরিবারের এক সদস্য হয়ে উঠেছিল। মাহুতের সঙ্গে হাতির বিশেষ যোগসূত্র ছিল। দামোদরণ হাতিদের প্রশিক্ষণের বিষয়ে প্রসিদ্ধ স্থানীয় এলাকায়। জানিয়েছেন রাজেশ।