ফাইজারের টিকা পেতে দেরি হওয়ায় ক্ষুব্ধ ইউরোপ

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১ | আপডেট: ৭:৩৩:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

প্রত্যাশার চেয়ে অনেক কম পরিমাণে মার্কিন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফাইজারের উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহ পাচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) কয়েকটি দেশ। ছয়টি দেশ এই পরিস্থিতিকে অগ্রহণযোগ্য আখ্যা দিয়ে সতর্ক করে বলেছে, এতে টিকা প্রক্রিয়ার বিশ্বাসযোগ্যতা কমে যেতে পারে।

ফাইজার-বায়োএনটেকের ওপর চাপ বাড়াতে ইইউ’র প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সুইডেন, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, লিথুনিয়া, লাটভিয়া এবং এস্তোনিয়া। তবে ফাইজার দাবি করেছে কম সরবরাহ করার বিষয়টি একটি সাময়িক ইস্যু। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

তবে ফাইজার বলছে, উৎপাদন বাড়াতে উৎপাদনপ্রক্রিয়ায় পরিবর্তন আনায় ভ্যাকসিনের চালান কিছুটা কমেছে। জানুয়ারি মাসের শেষ থেকে ফেব্রুয়ারি মাসের শুরু পর্যন্ত সাময়িকভাবে এই প্রভাব থাকবে। তবে ফেব্রুয়ারির শেষে ও মার্চে রোগীদের জন্য চালান বাড়বে ও ভ্যাকসিন সহজলভ্য হবে।

জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ফাইজারের এ ঘোষণাকে বিস্ময়কর বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত টিকা দেয়া হবে বলে ফাইজার ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু এখন ভিন্ন কথা বলছে।

ইইউ কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লিয়েন বলেছেন, ‘ফাইজারের প্রধান নির্বাহী তাকে জানিয়েছেন যে, বছরের প্রথম তিন মাসে সব ভ্যাকসিন পৌঁছে যাবে। এ বছর ৬০ কোটি ডোজ সরবরাহ করতে ফাইজার সম্মত হয়েছে। প্রথমে যে পরিমাণ চাওয়া হয়েছিল এটি তার চেয়ে দ্বিগুণ।

লিথুনিয়া বলেছে, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতে যে পরিমাণ ভ্যাকসিন দেয়ার প্রতিশ্রুতি ফাইজার দিয়েছিল, তার মাত্র অর্ধেক এসে পৌঁছেছে।

ইউরোপীয় কমিশন আরও পাঁচটি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছেছে। তাদের কাছ থেকে কয়েক লাখ ভ্যাকসিন কিনবে ইইউ। এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠান হলো অ্যাস্ট্রেজেনেকা, স্যানোফি-জিএসকে, জনসন অ্যান্ড জনসন, কিউরভ্যাক ও মডার্না। ইইউ নোভাভ্যাক্সের সঙ্গেও ২০ কোটি ভ্যাকসিন আনার ব্যাপারে কথা বলেছে।