ফোরজিতে এক ধাক্কায় সরকারের আয় বেড়েছে ৫৮ শতাংশ!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩:৩৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০১৯ | আপডেট: ৩:৩৭:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০১৯
সংগৃহীত

দেশে ফোরজি চালু হওয়ার সুফল পাচ্ছেন গ্রাহক। উচ্চ গতির নেটওয়ার্কের এ সেবা থেকে সরকারের কোষাগারও ভরেছে বেশ। গত অর্থবছরের মাঝামাঝিতে ফোরজি চালু হওয়ার সময় স্পেকট্রামের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়।

ওই নিলামেই বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) তথা সরকারের আয় এক ধাক্কায় প্রায় ৫৮ শতাংশ বেড়েছে।

সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিটিআরসি শুধু স্পেকট্রাম থেকে আয় করেছে তিন হাজার ৫২০ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। মােট আয় করেছে ছয় হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সব মিলে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থার রাজস্ব আয় হয় চার হাজার ৬৬ কোটি টাকা।

ফেব্রুয়ারির ওই নিলামে সব মিলে পাঁচ হাজার কোটি টাকার বেশি স্পেকট্রাম বিক্রি হয়। বাকি টাকা অপারেটররা কিস্তিতে পরিশোধ করবে। ফলে চলতি বছরেও স্পেকট্রাম বিক্রি থেকে আয় বিটিআরসির তহবিলে যোগ হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এর বাইরে বিটিআরসির অ্যাকাউন্ট সমৃদ্ধ করতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আয়ের খাত ছিল অপারেটরগুলোর রেভিনিউ শেয়ারিং। সেখান থেকে সর্বশেষ অর্থবছরে আয় হয়েছে দুই হাজার ৫০১ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে এই দুটি খাত থেকে বিটিআরসির কোষাগারে জমা পড়ে যথাক্রমে ৯৪৯ কোটি ২৫ লাখ ও দুই হাজার ৬৪৮ কোটি ৯০ লাখ।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে অন্য খাতগুলোর মধ্যে লাইসেন্স ফি থেকে ১৭৪ কোটি ২ লাখ টাকা, লাইসেন্স অ্যাক্যুইজিশন ফি থেকে ৯৯ কোটি ৭৬ লাখ, অ্যাপ্লিকেশন ও মূল্যায়ন ফি বাবদ ২৩ লাখ, প্রশাসনিক ও অবৈধ অপারেশনজনিত জরিমানা হিসেবে ২০ কোটি ২০ লাখ, বিলম্ব ফি বাবদ ২৩ কোটি ৪৫ লাখ, মার্জার ফি থেকে এক কোটি ৮৮ লাখ রাজস্ব আহরণ করে। অন্যান্য আয় থেকে আয় এসেছে প্রায় ৯৯ কোটি টাকা।

২০১৫-১৬ অর্থবছরে আয়ের পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ২০৭ কোটি টাকা। আগের বছর রাজস্বের পরিমাণ ছিল চার হাজার ২১৯ কোটি টাকা।