বগুড়ার দুর্গম চরে অশ্লীল নৃত্য ও জুয়ার আসর

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৮ | আপডেট: ১২:১৬:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৮
বগুড়ার দুর্গম চরে অশ্লীল নৃত্য ও জুয়ার আসর

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে সরকারি দলের কিছু নেতার সহযোগিতায় কাজলা ইউনিয়নের দুর্গম যমুনার চরে যাত্রাপালার নামে অশ্লীল নৃত্য এবং জমজমাট জুয়ার আসর বসেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুধবার দুপুরে উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে দুটি যাত্রাপালার আসর ভেঙে দিয়েছে।

স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মাসব্যাপী ওই ইউনিয়নের শাহজালাল বাজার ও পাকেরদহ গ্রামে দিনরাত জুয়া খেলার উৎসব চলছিলো বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চরের কয়েকজন ব্যক্তি জানান, প্রতিরাতে যাত্রাপালার মাইকের শব্দে ও জুয়ার আসরের হৈ-হুল্লোরে রাতে ঘুমানো যায় না। এছাড়াও চুরি ছিনতাইয়ের আশঙ্কায় আশপাশের গ্রামের লোকজন রাত জেগে বাড়িঘর পাহারা দিচ্ছে। প্রশাসনের তদারকি না থাকায় যুবকরা জুয়া খেলায় মগ্ন হয়ে পড়েছে।

তারা অভিযোগ করেন, কাজলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের ভাই ও উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রনজু সরকার, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, দফতর সম্পাদক সোহানুর রহমান সোহাগের নেতৃত্বে এই যাত্রা ও জুয়ার আসর বসে।

উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রনজু সরকার জানান, মাত্র দু’দিন তিনি এ অনুষ্ঠান চালিয়েছেন।

এ বিষয়ে কাজলা ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদ সরকারের সঙ্গে মোবাইলে ফোনে যোগাযোগ করলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সারিয়াকান্দি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবায়দুর রহমান বলেন, যাত্রাগান সংস্কৃতির অংশ। যাত্রাগান চললে সমস্যা কী। দুর্গম চরে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখা সম্ভব হয়ে ওঠে না।

সারিয়াকান্দি উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিদ্ধার্থ ভৌমিক জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর বুধবার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে দুটি যাত্রাপালার প্যান্ডেল ভেঙে দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ছামিয়ানার কাপড়ে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এ সময় সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা জানান, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।