ববিতে রোহিঙ্গা সঙ্কট বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯ | আপডেট: ৭:৫৮:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

ফারিয়া জাহান, ববি প্রতিনিধি: বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (ববি) ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগের আয়োজনে “রোহিঙ্গা সংকট ও ঐতিহাসিক শেকড় সন্ধান এবং সমকালীন বাস্তবতা” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগের চেয়ারম্যান ড.আব্দুল বাতেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং একই বিভাগের প্রভাষক সুরাইয়া আক্তারের সঞ্চালনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনানন্দ দাশ কনফারেন্সে কমপ্লেক্সে উক্ত সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড.এ কে এম মাহবুব হাসান।তিনি তার বক্তব্য বলেন, বর্তমান রোহিঙ্গা সমস্যা একটি বিরল সমস্যা যা দেশের অর্থনীতির উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলছে এবং এই সমস্যা নিরসন করতে না পারলে দেশের ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে।বর্তমান সরকার এই রোহিঙ্গা সমস্যা নিরোসন করার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যা প্রশংসার দাবিদার।

সেমিনারে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক ও জন-ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি অধ্যাপক ড.মেসবাহ কামাল।তিনি তার প্রধান বক্তার বক্তব্যে বলেন,রোহিঙ্গা সমস্যা পৃথিবীর একটি বড় সমস্যা।কারণ ১৮লক্ষ রোহিঙ্গা বিভিন্ন দেশে বিদ্যমান তার মধ্যে বাংলাদেশে ১১-১২ লক্ষ রোহিঙ্গা অবস্থান করছে।

রোহিঙ্গারা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এবং তাদের যে নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছিলো মায়ানমারে,সেটি পরে প্রত্যাখ্যান করে তাদেরকে বিতাড়িত করার জন্য হত্যা,ধর্ষণ,ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়াসহ বিভিন্ন নির্যাতন করে আসছে দেশটি।মায়ানমার সরকারের উদ্দেশ্য সংখ্যালঘু (অধিকাংশ মুসলিম) রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করে ভূমি দখল করা।

তিনি আরও বলেন,পাকিস্তান যেমন আমাদের উপর খুন,ধর্ষণ ও নির্যাতন চালাতো তারা ভূমি দখল করার জন্য ঠিক তেমনি মায়ানমারও ভূমি দখল করার জন্য রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন করেছে।বাংলাদেশেকে প্রশংসা করে বলেন,২০১০ সালের মোট ২৪টি জাতিকে স্বীকৃত প্রদান করেন পরবর্তীতে অর্থাৎ ২০১৫ সালে স্বীকৃত দেন ৫০টি জাতিকে যা এক মহান দৃষ্টান্ত কিন্তু মায়ানমার ১৩৫টি জাতির মধ্যে মাত্র ৮টি জাতিকে স্বীকৃত দেন যা একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে কখনো কাম্য নই।

তিনি বলেন একটি দেশে নানা জাতি,ধর্মের মানুষ বসবাস করতেই পারে তাতে সাম্প্রদায়িকতার স্থান দেওয়া ঠিকনা,অসম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী হয়ে সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।তিনি সকল শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, সকল সমস্যা নিরোসন করার জন্য ছাত্রদের গবেষণা ও সচেতন হতে হবে তাহলে সমস্যার সমাধান করার প্রত্যয় গ্রহণ করা যাবে।

এ সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন সেমিনারের বিশেষ অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন ও ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান ড.মোঃ মুহাসিন উদ্দীন,ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগের প্রভাষক হাবিবুল্লাহ মিলনসহ আরও অনেকে।

এছাড়াও এ সেমিনারে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যানবৃন্দ,শিক্ষকমন্ডলি ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে মৃত্তিকা কামাল নির্মিত “Escape” এবং ” Home Away from Home” এবং উজান রহমান নির্মিত “Arson,Rape,Brutal Murders” ডকুমেন্টারিসমূহ প্রদর্শন করা হয়।

সেমিনারটি অধ্যাপক ড.মেসবাহ কামালকে সম্মাননা স্মারক প্রদান ও উন্মুক্ত প্রশ্ন করার মাধ্যমে শেষ করা হয়।