বাংলাদেশের অগ্রগতি ৮ ধাপ, ভারতের নিম্নগতি ১০ ধাপ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৫৬ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২০ | আপডেট: ১০:৫৬:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০২০

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের তথ্য অনুযায়ী গনথন্ত্রের সূচকে বাংলাদেশ ৮ ধাপ এগিয়েছে। অন্যদিকে পাশ্ববর্তী ভারত ১০ ধাপ নিচে চলে গেছে। ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ) সর্বশেষ (২০১৯) গণতন্ত্র সূচকে বাংলাদেশ ৫ দশমিক ৮৮ স্কোর নিয়ে ৮০তম স্থানে উঠে এসেছে। এর আগের (২০১৮) সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৮৮ আর স্কোর ছিল ৫ দশমিক ৫৭।

অন্যদিকে, ভারতের অভ্যন্তরে চরম মানবাধিকার খর্ব হচ্ছে বলে রাজ্যে রাজ্যে চলছে গণআন্দোলন। সেই পরিস্থিতির মধ্যেই বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে ১০ ধাপ নিচে নেমে গেলো ভারত।

২০১৯ সালের তালিকায়, ১৬৭টি স্বাধীন দেশের মধ্যে ৫১তম স্থানে জায়গা হয়েছে ভারতের। ২০১৮’তে ভারতের স্থান ছিল ৪১ নম্বরে। এই পতনের জন্য ভারতের নাগরিক অধিকার খর্ব হওয়াকেই দায়ী করছে ব্রিটিশ গবেষণা সংস্থা ইকোনমিস্ট ইনটেলিজেন্স ইউনিট।

বলা হয়েছে, সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের আগে কাশ্মীর উপত্যকায় বিশাল সংখ্যক সামরিক বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করেছিল ভারত। সেখানে কারফিউ জারি, রেকর্ড দিন ধরে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে রাখা, তিনি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে গৃহবন্দী করে রাখা, হাজার হাজার কাশ্মীরিকে অনৈতিকভাবে গ্রেফতারের অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে।
মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ দেশের সংখ্যালঘুদের একটা বড় অংশই। এমনকী ধর্ম নির্বিশেষে সাধারণ মানুষের বাক স্বাধীনতা হরণেরও অভিযোগ উঠেছে।

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে কার্যকর গণতন্ত্র রয়েছে ২২টি দেশে। আর ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র রয়েছে ৫৪টি দেশে। হাইব্রিড শাসন ব্যবস্থা রয়েছে ৩৭টি দেশে। আর কর্তৃত্ববাদী শাসনব্যবস্থা কার্যকর রয়েছে ৫৪টি দেশে।

বিশ্বের কোন দেশের সরকার কতটা সক্রিয়, দেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া কতটা স্বচ্ছ, নাগরিক অধিকার কতটা সুরক্ষিত, রাজনৈতিক সংস্কৃতি কেমন, দেশের মানুষ রাজনীতির সঙ্গে কতটা যুক্ত, তা বিচার করে ২০০৬ সাল থেকে গণতন্ত্র সূচক প্রকাশ করে আসছে ইআইইউ।

গণতন্ত্র সূচক তালিকায় একেবারে শীর্ষে রয়েছে নরওয়ে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে আইসল্যান্ড। তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে রয়েছে সুইডেন ও নিউজিল্যান্ড। পঞ্চম স্থানে রয়েছে ফিনল্যান্ড।

তালিকার প্রথম ২০’এ জায়গা হয়নি যুক্তরাষ্ট্রের। জার্মানি, ব্রিটেন রয়েছে যথাক্রমে ১৩ ও ১৪তম স্থানে। ২০তম অবস্থানে রয়েছে ফ্রান্স। ১৩৫ নম্বরে রাশিয়া। আর উত্তর কোরিয়া রয়েছে সবার শেষে, অর্থাৎ ১৬৭ নম্বরে।