বাজেট বাড়ে; মশাও বাড়ছে!

প্রকাশিত: 7:20 PM, July 21, 2019 | আপডেট: 7:20:PM, July 21, 2019

মীর আব্দুল আলীম: আশঙ্কার বিষয় হচ্ছে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। মশাদের বশ করা যাচ্ছে না। ছোট প্রাণের হলেও অতি ক্ষমতাধর প্রাণী এই মশা! মশাদের বশে আনতে কামান দাগাতে হয়। কামানের গুলি যদি দুর্বল হয় মশারা বশে আসবে কি করে?

একদিকে মশার ভনভনানি আরেক দিকে প্রাণঘাতী মশাবাহী ডেঙ্গু আর চিকন গুনিয়ার ভয়ে আমাদের ঘুম সত্যিই হারাম। জনগণের ঘুম হারাম হলেও সরকার সংশ্লিষ্টরা কিন্তু নকে তেল দিয়ে ঠিকই ঘুমাচ্ছেন। তাই স্বয়ং হাইকোর্ট ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনকে সজাগ করার চেষ্টা চালাচ্ছে। হাইকোর্ট অতীত নিকটে এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এ পর্যন্ত কি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছেন। সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের কাছে দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন চেয়েছেন মহামান্য আদালত। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন সজাগ থাকলে হাইকোর্টের নাক গলানোর কোন কারণই ছিল না। মশার প্রকোপ এবং ডেঙ্গ জ্বরের ব্যাপকতা বেড়ে যাওয়ায় দুই সিটির মালিক আর পাইক পেয়াদাদের নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

‘রাজধানীতে দিন দিন মশার উপদ্রব বাড়ছে কেন? এই বিপুল জনবল আর বিপুল পরিমাণ অর্থের সঠিক ব্যবহার হলেতো নগরীতে এভাবে মশা থাকার কথা না? বাজেট বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে মশাও। অথচ বাজেটের টাকা খরচ করলে মশা নির্মূল হওয়ার কথা। ’

গোটা ঢাকার মশা মারার ফগিং কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ইতোমধ্যে। ওষুধের মান নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে চলছে নানা গুঞ্জন। তাছাড়া কার্যকর পদক্ষেপ এবং তার বাস্তবায়নও হচ্ছে প্রশ্নবিদ্ধ। মশা নিধনে ব্যাপক আয়োজন, প্রচার এবং কোটি টাকা ব্যয় হলেও কাজের কাজ কিছুই হয় না। তাই যা হবার তাই হলো। শহরে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়েছে। এ নিয়ে সর্বসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
খোদ রাজধানী ঢাকায় দাবড়ে বেড়াচ্ছে মশারদল। মশককুল রাজধানীতে রামরাজত্ব কায়েম করেছে। এ মশা দুই সিটি কর্পোরেশনের সুনামে হুল ফুটাচ্ছে! মশার এ যাতনা উভয় সিটি কর্পোরেশনের জন্য মোটেও সুখকর নয়। এডিস মশা ডেঙ্গুর বাহক। সৌখিন ফুলের টবে, এসির জমে থাকা পানিতে, এমনকি ভালো বালতিতেও যদি কয়েকদিনের পানি থাকে সেখানেই চলে এডিস মশার জন্ম উৎসব। লার্ভা থেকে পাখা গজানোর সাথে সাথেই শুঁড় হানবে। আর পনের দিনের মধ্যেই আপনাকে পাঠাবে হাসপাতালে। তারপর অবর্ণনীয় কষ্ট আর ভোগান্তি। শেষ পরিণতি মৃত্যুও হতে পারে।

এ মশার কামড়ে এরই মধ্যে বহু লোকের প্রাণ গেছে। তাই হাইকোর্টকেতে মাথা ঘামাতেই হবে। এ বছর রাজধানীতে অন্যান্য বছরের তুলনায় মশার উৎপাত একটু বেশিই। এলাকার বাসিন্দারা এ জন্য ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের (উত্তর, দক্ষিণ) অবহেলাকে দায়ী করেন। আমরা মনে করি বিরক্তিকর এবং আতঙ্কজনক মশা নিধনে সিটি কর্পোরেশনের কার্যকর পদক্ষেপই যথেষ্ট। সিটি কর্পোরেশন সচেষ্ট হলে সহসাই মশা প্রকোপ কমে আসবে।

মশা মারা নিয়ে মশকরা অনেক হয়েছে। মানুষ এখন মশার কাছে জিম্মি। দোহাই আপনাদের মশা ঠেকান! এখানে ব্যর্থ হলে জনগণ তার জবাব দেয়। বিগত ইতিহাস থেকে তাই শিখেছি আমরা। আজকাল মশা যেভাবে কামড়াচ্ছে তাতে করে নির্বাচনের সময় কামড়ের জ্বালা বোধ করি সিটি মেয়রগণ টের পাবেন। মশা অতি ক্ষুদ্র এক কীট হলেও ক্ষমতার গদি নড়বড়ে করতে এর জুড়ি নেই। মশা নিধনে ব্যর্থ হয়ে অনেকে পড়েছেন বিপাকে। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক থাকার কথা নয়। তারপরও ঢাকার রাজনীতিতে মশা বরাবরই একটি বড় ইস্যু।

প্রশ্ন হলো, মশা নির্মূলে কি করছে দুই সিটি করপোরেশন? ডিসিসি উত্তর ও দক্ষিণে মশা নিধনের জন্য এক হাজারের ওপর মশক শ্রমিক কর্মরত আছে। নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে ৫/৬ জন কর্মী আছে বলে পত্রিকায় জেনেছি। যাদের কাজ শুধু মশার ওষুধ ছিটানো। প্রতি বছর মশা নির্মূলে প্রায় ৫০ কোটি টাকা বছরে বরাদ্দ পায় দুই সিটি করপোরেশন। এত কিছুর পরও রাজধানীতে দিন দিন মশার উপদ্রব বাড়ছে কেন? এই বিপুল জনবল আর বিপুল পরিমাণ অর্থের সঠিক ব্যবহার হলেতো নগরীতে এভাবে মশা থাকার কথা না? বাজেট বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে মশাও। অথচ বাজেটের টাকা খরচ করলে মশা নির্মূল হওয়ার কথা।

প্রজনন ও উৎসস্থলেই মশার বংশ ধ্বংস করতে হবে। আবর্জনা দ্রুত অপসারণ করতে হবে। আবর্জনা ফেলার জায়গাগুলো সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং নিয়মিত ওষুধ ছিটানোর ব্যবস্থা করতে হবে যাতে ওই সব জায়গায় মশার জন্ম হতে না পারে। খোলা নর্দমাগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হবে, ওষুধ দিতে হবে যাতে সেখানে মশা জন্মাতে না পারে। একইভাবে জলাশয়গুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে, নিয়মিত ওষুধ ছিটিয়ে মশার লাভা মুক্ত করতে হবে।

উৎসে মশা দমন ও নিধন না করে উড়ন্ত মশা দমন ও নিধন কার্যক্রম চালিয়ে ঢাকাকে মশামুক্ত করা যাবে না। সিটি কর্পোরেশনদ্বয়কে এই সত্য উপলব্ধি করে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করতে হবে। ওয়ার্ড কমিশনারদের আরও দায়িত্বশীল ও সক্রিয় হতে হবে।

লেখক: সাংবাদিক