বিদেশিদের হোটেল বিলেই বরাদ্দের ১৫০ কোটি টাকা শেষ!

রোহিঙ্গাদের বরাদ্দ থেকে ২৫ শতাংশই খরচ

প্রকাশিত: ৮:৫০ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৯ | আপডেট: ৮:৫০:অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৯

রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দ অর্থের ৭৫ শতাংশই নিজেদের পেছনে খরচ করে এনজিওগুলো বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেছেন, মানবিক সহায়তায় ব্যয় হয় মাত্র ২৫ শতাংশ, বাকি সব টাকা চলে যায় এনজিওর পকেটে।

এর মধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দের ২৫ শতাংশই খরচ করা হচ্ছে হোটেলের বিল মেটাতে! বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করছে, এমন বিদেশি সংস্থাগুলো বিগত ছয় মাসে হোটেল বিল পরিশোধ করেছে ১৫০ কোটি টাকা। এ ব্যাপারে মন্ত্রিসভার বিশেষ কমিটি উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বুধবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে অনুষ্ঠিত আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর এমন তথ্য সামনে এসেছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নতুন গঠিত সরকারের আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটি এদিন প্রথম বৈঠকে বসে। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

সাংবাদিকদের তিনি জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করছে এমন বিদেশি সংস্থাগুলো গত ছয় মাসে শুধু ১৫০ কোটি টাকা হোটেলের বিল মিটিয়েছে। রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দের ২৫ শতাংশই তা। বিষয়টিকে অত্যন্ত দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন মন্ত্রীর।

মন্ত্রী আরও বলেন, মায়ানমার থেকে যেন আর কোনও রোহিঙ্গারা আসতে না পারে, সে জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে বলেও জানান তিনি। মন্ত্রীর দাবি ভাসানচর এলাকাটি বসবাসের উপযুক্ত করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের কোথায় রাখা হবে, সেটা বাংলাদেশের সিদ্ধান্তের বিষয়। বিদেশিরা তাদের মানবিক দিকগুলো দেখবে। বাংলাদেশের বিষয়ে নাক গলানোর তাদের দরকার নেই।