‘বিদ্রোহী প্রার্থী হলেই আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার’

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:৩৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮ | আপডেট: ১:৩৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

আগামী নির্বাচনে কেউ দলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করলে বা মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (৮ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে উত্তরবঙ্গ সফরে যাওয়ার পথে টাঙ্গাইলের ঘারিন্দা রেলস্টেশনে আয়োজিত পথসভায় মন্ত্রী এ কথা বলেন।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আাগামী জাতীয় নির্বাচনে কেউ দলের বিরুদ্ধে কাজ করার চেষ্টা করবেন না। দলের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করলে বা দলের মধ্যে বিদ্রোহী প্রার্থী হলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।’

দলের মধ্যে বিশৃঙ্খলাকারীদের বিরুদ্ধে ‘অ্যাকশন’ শুরু হয়ে গেছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘তিন দিনের মধ্যেই শোকজ যাবে। দিনাজপুর যাবে, রাজশাহী যাবে, বরগুনা যাবে, সিলেট যাবে।’

দলের নেতাকর্মীদের সতর্ক করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘ঘরের মধ্যে ঘর বানানোর চেষ্টা করবেন না। মশারির মধ্যে মশারি টানানোর চেষ্টা করবেন না। শেখ হাসিনার অ্যাকশন, ডাইরেক্ট অ্যাকশন।’

বিএনপি-জামায়াত আবারো ২০১৪ সালের মতো আগুন সন্ত্রাস ও ষড়যন্ত্রের পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগের এই নেতা। তবে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এসব অপচেষ্টা কঠোরভাবে প্রতিহত করার ঘোষণা দেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি মানেই আগুন সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, দুর্নীতি আর অপশাসন। বিএনপি গত ৯ বছরে ৯ মিনিটের জন্যেও আন্দোলন করতে পারেনি। আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনে ভর করেছে। অপপ্রচার আর গুজবের ষড়যন্ত্র করেছে। তাদের এই ষড়যন্ত্র জনগণকে নিয়ে কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে।’

জনগণ আর বিএনপির দুঃশাসনে ফিরতে চায় না উল্লেখ করে বর্তমান সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, দেশে যে উন্নয়নের জোয়ার বইছে তাতে জনগণ আবারও নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনবে। তিনি দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আগামীতে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আবারো আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে।

পথসভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, বি এম মোজ্জামেল হক, প্রচার সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমান খান ফারুক, সাধারন সম্পাদক জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের ও জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান ছোটমনিসহ আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পথসভা শেষ করে ওবায়দুল কাদের বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ট্রেনযোগে উত্তরবঙ্গের উদ্দেশে রওনা হন। এই সফরে টাঙ্গাইলের পর পাবনার ঈশ্বরদী, নাটোর, বগুড়ার শান্তাহার, জয়পুরহাট, জয়পুরহাটের আক্কেলপুর, দিনাজপুরের বিরামপুর, ফুলবাড়ি, পার্বতীপুর ও নীলফামারীর সৈয়দপুর স্টেশনে পথসভা করার কথা রয়েছে তার।