‘বিবাহিত’ দাবি করে ছাত্রলীগ সভাপতিকে পদবঞ্চিত নেত্রীর স্ট্যাটাস

প্রকাশিত: ৩:৪৭ অপরাহ্ণ, মে ১৪, ২০১৯ | আপডেট: ৩:৪৭:অপরাহ্ণ, মে ১৪, ২০১৯

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে পদধারী ও পদ বঞ্চিতদের মধ্যে চলছে চরম উত্তেজনা। দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। কমিটি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন পদবঞ্চিতরা। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান না পেয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শাখার নেত্রী জারিন দিয়া (ক্যান্ডেল)।

ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে বিবাহিত দাবি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে ছাত্রলীগের এই নেত্রী। সোমবার (১৩ মে) ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এই কমিটিতে কোনও পদ পায়নি এই নেত্রী। এর আগে তিনি গণিত বিভাগ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

তবে, এই অভিযোগের বিষয়ে কোনও উপযুক্ত প্রমাণ থাকলে তা উপস্থাপন করতে বলেছেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। তা না হলে তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবেন বলেও জানান তিনি।

ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে উদ্দেশ করে ফেসবুকে এই নেত্রী লিখেছেন ‘রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং গোলাম রাব্বানী ভাই, আপনারা যেসব মেয়েদের কমিটিতে রেখেছেন, তারা কয়দিন থেকে রাজনীতি করে? নিজে বিবাহিত বলে কমিটিতে দুনিয়ার বিবাহিত মেয়েদের রেখেছেন। গোলাম রাব্বানী ভাই আমাকে সবার সামনে বলছিলেন, দুই দিনের মেয়ে কেমনে পোস্ট পাইছো বুঝি নাই। অনেক তথ্য অপেক্ষা করছে আপনাদের জন্যে। এই বিবাহিত বিতর্কিত কমিটি মানি না, মানবো না। আমার শ্রমের মূল্য দিতে হবে আপনাদের।’

এই স্ট্যাটাসের বিষয়ে জারিন দিয়া বলেন, ‘হ্যাঁ, এটি আমার পোস্ট।’ ছাত্রলীগের সভাপতি বিবাহিত- এই বিষয়ে তার কাছে কী প্রমাণ রয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার কাছে কয়েকটি ছবি আছে, যেগুলো দেখলে সবাই বুঝতে পারবে। তবে, সময় আসুক সে ছবিগুলো প্রকাশ করবো। এছাড়া তিনি যে বিবাহিত তা সবারই জানা আছে। আর রাব্বানী আমাকে পূর্বশত্রুতার জের ধরেই পদ দেননি।’

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘আমি এই স্ট্যাটাস দেখেছি। কবে বিয়ে করেছে, কাকে বিয়ে করেছে, এটার প্রমাণ দিতে অভিযোগকারীকে জিজ্ঞেস করেন। এই তথ্য কোথায় পেয়েছে? যেখানে এনএসআই ডিজিএফআই কোনও তথ্য পেলো না, সেখানে এসব তথ্য সে কোথায় পেলো? সেটা তাকে জিজ্ঞাসা করেন। আমার সম্পর্কে যে মন্তব্য লিখেছে, সে বিষয়ে আমি তাকে ধরবো। সে যে গত কমিটিতে রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত না থেকে কেন্দ্রীয় সদস্য পদ পেয়েছে, এটার প্রমাণ আমার কাছে আছে। আমি তো তিন কমিটিতে রাজনীতি করেছি। কোনোদিন এই মেয়েকে রাজনীতিতে দেখিনি। ওই মেয়ে আমাদের মানহানি করেছে, তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবো।’