বিশ্ব এখন মহামারি শেষ হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারে: ডব্লিউএইচও

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:৩৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৫, ২০২০ | আপডেট: ৪:৪০:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৫, ২০২০

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রস আধানম গেব্রেইয়েসাস-এর মুখে অবশেষে অত্যন্ত আশার কথা শোনা গেল। করোনা অতিমারি শেষ হওয়ার স্বপ্ন দেখা শুরু করতে পারে বিশ্ব। শুক্রবার এমনই জানালেন হু প্রধান।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তবে এর সঙ্গেই তাঁর সতর্কবার্তা টিকার লড়াইয়ে কোনো ভাবেই যেন ধনী ও শক্তিশালী দেশগুলি দরিদ্র এবং প্রান্তিক দেশগুলিকে পদদলিত না করে।

ফাইজার-বায়োএনটেক ও মডার্না আলাদাভাবে করোনাভাইরাসের দুটি টিকার কার্যকারিতার বিষয়ে প্রাথমিক বিশ্লেষণের ফল ঘোষণার পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান এমন মন্তব্য করলেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে করোনা মোকাবিলার যেসব সরঞ্জাম রয়েছে, টিকা তার পরিপূরক হতে পারে, প্রতিস্থাপক নয়।’

টিকা নিজ থেকে কখনো মহামারির সমাপ্তি ঘটাবে না বলেই মনে করছেন গেব্রিয়াসিস। তবে ভ্যাকসিন আসার বাস্তবতায় খানিক আশার আলো জ্বেলে তিনি বলেছেন, ‘করোনা মহামারি শেষ হওয়ার স্বপ্ন দেখা শুরু করতে পারে বিশ্ব।’

মাঝে খানিকটা কমে এলেও অনেক দেশে কোভিড-১৯ রোগের দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্যেই বিভিন্ন ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের তৈরি করোনার টিকার কার্যকারিতা বিষয়ে তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। সম্প্রতি ফাইজার ও বায়োএনটেক দাবি করেছে, তাদের তৈরি করোনা টিকা ৯০ শতাংশ কার্যকর। যুক্তরাষ্ট্রের আরেক বহুজাতিক কোম্পানি মডার্নার দাবি, তাদের তৈরি টিকা ৯৪ দশমিক ৫ শতাংশ কার্যকর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেছেন, প্রথম দিকে করোনার ভ্যাকসিন স্বাস্থ্যকর্মী, বয়স্ক ব্যক্তি ও যারা করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে আছেন, তাদের ওপর প্রয়োগ করা হবে। আশা করা হচ্ছে এর ফলে মৃতের সংখ্যা কমে আসবে। ভ্যাকসিন স্বাস্থ্যসেবা প্রক্রিয়াকে করোনা মোকাবিলায় সাহায্য করবে।

গেব্রিয়াসিস হুঁশিয়ার করেছেন, এরপরও ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার অনেক সুযোগ থেকে যাবে। নজরদারি জারি রাখতে হবে, মানুষকে করোনা শনাক্তের পরীক্ষা করাসহ আক্রান্ত ব্যক্তিকে আইসোলেশনে থাকতে হবে। আলাদা করে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির যত্ন নিতে হবে।